স্পটলাইট

নারী-পুরুষে সমতা বিশ্বের মাত্র ছয় দেশে

নারী-পুরুষে সমতা বিশ্বের মাত্র ছয় দেশে

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে লিঙ্গ সমতার পূর্বের অবস্থার পরিবর্তন হলেও তা প্রত্যাশীত নয়। কারণনারী-পুরুষ সমতার ক্ষেত্রে বিশ্বের মাত্র ছয়টি দেশে শতভাগ সাফল্য দেখাতে পেরেছে। সম্প্রতি প্রকাশিত বিশ্ব ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান বিশ্ব ব্যাংক প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, তালিকায় নারী-পুরুষ সমতার ক্ষেত্রে শতভাগ সফল বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, ফ্রান্স, লাটভিয়া, লুক্সেমবার্গ ও সুইডেন। কাজের ক্ষেত্রে নারীদের আইনি অধিকার সংরক্ষণের মাধ্যমে দেশগুলো লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত করেছে। বিশ্ব ব্যাংকের প্রতিবেদনেটির শিরোনাম হলো ‘উইমেন বিজনেস এ্যান্ড দ্যা ল ২০১৯’। বিশ্বের ১৮৭টি দেশের লিঙ্গ বৈষম্য পর্যবেক্ষণ করে এই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। নারী-পুরুষ সমতা ক্ষেত্রে উল্লেখ করার মতো অগ্রগতি হয়েছে দক্ষিণ এশিয়ায়। আর সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকায়। প্রতিবেদনে
ছেলের ইচ্ছা পূরণ করতে প্রাণপণ লড়ছেন মা

ছেলের ইচ্ছা পূরণ করতে প্রাণপণ লড়ছেন মা

সুব্রত জানা হাঁটার সময়ও ছেলেকে কোলে নিয়েই থাকেন তিনি। কাঁধে ঝোলানো ব্যাগ। সকালে আট কিলোমিটার হেঁটে যান, ফেরার পথও একই। বাড়ি থেকে ঠিক ওই দূরত্বটা পার করলে ছেলে গিয়ে বসতে পারে পরীক্ষার হলে।  এ বছর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া জেলার উলুবেড়িয়ার রাজাপুর কাঁটাবেড়িয়া গ্রামের শুভজিৎ মালিক। ছোট থেকে ঠিক মতো বেড়ে ওঠেনি তার শরীর। শারীরিক প্রতিবন্ধী ছেলের ভরসা সে কারণে তিনিই। মা কণিকা মালিক অনেকেরই উপেক্ষা, ব্যঙ্গ উড়িয়ে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন, ভরসা যোগাচ্ছে ছেলে। অবশ্য লড়াই এখানেই শুরু নয়। এর আগে মায়ের কোলে চড়েই মাধ্যমিক পরীক্ষাও দিয়েছে শুভজিৎ। ২৬৬ নম্বর পেয়ে পাস করে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছিল কলা বিভাগে।  শুভজিতের ইচ্ছা লেখাপড়া শিখে শিক্ষক হওয়ার। ছেলের সেই ইচ্ছা পূরণ করতে প্রাণপণ লড়ছেন কণিকা। পরীক্ষার হলে ছেলেকে বসিয়ে দিয়ে বাইরে অপেক্ষা করেন তিনি।  তিন
এক তরুণীর স্যানিটারি প্যাড তৈরির গল্প জিতে নিল অস্কার

এক তরুণীর স্যানিটারি প্যাড তৈরির গল্প জিতে নিল অস্কার

স্নেহার বয়স যখন ১৫, তখন তার ঋতুস্রাব শুরু হয়। প্রথমবার তিনি যখন নিজের মাসিকের রক্ত দেখেছিলেন, তখনও এ বিষয়ে তার কোনো ধারণা ছিল না। "আমি খুবই ভয় পেয়ে যাই। ভেবেছিলাম হয়তো ভয়ানক এক অসুখ হয়েছে। তখন আমি কাঁদতে শুরু করেছিলাম," বলছিলেন স্নেহা, দিল্লির কাছেই তার গ্রাম কাথিখেরায়, নিজের বাসায়। "মাকে বলার মতো সাহস ছিল না। তাই আমি খালাকে জানাই। তিনি বলেছিলেন, 'কেঁদো না। তুমি এখন একজন নারী হয়ে উঠেছ। এটা খুব স্বাভাবিক ব্যাপার।' তারপর তিনিই আমার মাকে জানান।" স্নেহা এখন ২২ বছরের তরুণী। কাজ করছেন গ্রামের ছোট্ট একটি কারখানায়, যেখানে স্যানিটারি প্যাড তৈরি করা হয়। তার এই গল্প নিয়ে নির্মিত একটি তথ্যচিত্র এবারের অস্কার পুরস্কার পেয়েছে। তথ্যচিত্রটির নাম "পিরিয়ড। এন্ড অফ সেন্টেন্স।" উত্তর হলিউডের কিছু শিক্ষার্থীর প্রযোজনায় একজন ইরানি-মার্কিন চলচ্চিত্র নির্মাতা রায়কা জেতাবচি তথ্
যৌন হেনস্থা নিয়ে মুখ বুজে থাকার প্রথা ভাঙতে মিছিল

যৌন হেনস্থা নিয়ে মুখ বুজে থাকার প্রথা ভাঙতে মিছিল

‘মেরি বেটি মাঙ্গে আজাদি’—হাত মুঠো করে স্লোগান তোলেন ভাঁওরি দেবী। সামনে বসা কয়েক হাজার নারী গলা মেলান, ‘আজাদি, আজাদি’। আপনার জন্যই তো আজ এই নারীরাও মুখ খুলছেন! প্রশ্ন শুনে লজ্জা পান ৫৫ বছরের প্রৌঢ়া। এক গাল হেসে, মাথার ঘোমটা টেনে দেহাতি টানে বলেন, ‘‘মি টু!’’ আমেরিকা-ইউরোপ, মুম্বাইয়ের বলিউড থেকে রাজধানী দিল্লি, #মিটু আন্দোলনের ভবিষ্যৎবাণীও তখনও কেউ করেননি। কেউ ভাবেননি, একের পর এক নারী ফেসবুক-টুইটারে প্রকাশ্যে নিজের যৌন হেনস্থা, ধর্ষণ নিয়ে মুখ খুলবেন। তার জেরে এম জে আকবরের মতো মন্ত্রীকে পর্যন্ত পদত্যাগ করতে হবে। এ সবের তিন দশক আগে রাজস্থানের ভাতেরি গ্রাম থেকে যৌন হেনস্থার বিরুদ্ধে মুখ খোলার আন্দোলন শুরু করেছিলেন ভাঁওরি দেবী। ১৯৯২ সালে নিজের গ্রামে বাল্যবিবাহ আটকাতে চাওয়ায় স্বামীর সামনেই গণধর্ষণ করা হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু দমে না গিয়ে পাল্টা লড়াই করেছিলেন। সেই লড়াইয়েরই ফসল, কর্মক্ষেত্র
ফিলিপাইনে শীর্ষ সাংবাদিক মারিয়া রেসা গ্রেপ্তার

ফিলিপাইনে শীর্ষ সাংবাদিক মারিয়া রেসা গ্রেপ্তার

ফিলিপাইনে সরকার সমালোচক নিউজ ওয়েবসাইট র‍্যাপলার এর প্রধান নির্বাহী মারিয়া রেসা গ্রেপ্তার হয়েছেন। বুধবার ম্যানিলায় নিজ প্রতিষ্ঠানের সদর দফতর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে তার বিরুদ্ধে কর ফাঁকিসহ বিভিন্ন অভিযোগ আনা হলেও সর্বশেষ অনলাইন মাধ্যমে মানহানির অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মারিয়া রেসা বলেছেন, তার প্রতিষ্ঠানকে চুপ করিয়ে দিতে রদ্রিগো দুত্যার্তে সরকারের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়েছে। সাত বছর আগে এক প্রতিবেদনের সূত্র ধরে রেসার বিরুদ্ধে সর্বশেষ অভিযোগ আনা হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে ফিলিপাইনের শীর্ষ আদালতের সাবেক এক বিচারকের সঙ্গে এক ব্যবসায়ীর অবৈধ যোগাযোগের অভিযোগ তোলা হয়েছিল। ওই প্রতিবেদন প্রকাশের চার মাসের মাথায় ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ফিলিপাইনে কার্যকর করা হয় ‘সাইবার- লাইবেল’ আইন। বিতর্কিত এই আইনে ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো রেসার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়
‘নোবেলবঞ্চিত’ বিজ্ঞানী রোজালিন্ডের নামে মঙ্গলযান

‘নোবেলবঞ্চিত’ বিজ্ঞানী রোজালিন্ডের নামে মঙ্গলযান

জাহাঙ্গীর সুর জীবনলিপি লেখা আছে যে ডিএনএতে, সেই অণু যে দেখতে মোচড়ানো মইয়ের মতো-এমন সত্য প্রথম আবিষ্কার করেছিলেন রোজালিন্ড ফ্রাংকলিন। কিন্তু জীবন-অণুর সেই মানচিত্র নকল করে নোবেল পেয়েছিলেন অন্য দুই বিজ্ঞানী। নোবেল তো দূরের কথা, জীবদ্দশায় কাজেরই স্বীকৃতি পাননি এই ব্রিটিশ রসায়নবিদ। গতকাল তার নামে একটি মঙ্গলযানের নামকরণ করা হয়েছে রোজালিন্ড ফ্রাংকলিন রোভার। ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি (ইসা) গতকাল তাদের ওয়েবসাইটে এ খবর দেয়। বিশ্ব বিজ্ঞানমহল এমন উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়েছে। বাংলাদেশের বিজ্ঞান লেখক খালেদা ইয়াসমিন ইতি গতকাল টেলিফোনে এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘এমন স্বীকৃতি সত্যিকার অর্থে বড় পাওয়া। ফ্রাংকলিন বেঁচে থাকতে এমন কিছু হলে তিনি কিছুটা আনন্দ পেতেন। আমি বলব, এমন স্বীকৃতির মাধ্যমে যুক্তরাজ্য তাদের ঐতিহাসিক অপারাধবোধ কিছুটা কমাল।’ ২০২০ সালে মঙ্গলের উদ্দেশে উড়ে যাবে রোজালিনন্ড ফ্রাংকলিন রোভার। একুশ সা
একটা মাত্র পা দিয়েই এসএসসি দিচ্ছেন তামান্না

একটা মাত্র পা দিয়েই এসএসসি দিচ্ছেন তামান্না

সারাদেশে একযোগে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়েছে। গতকাল শনিবার প্রথম দিনের পরীক্ষায় অন্যদের মতো অংশ নিয়েছে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া ইউনিয়নের আলিপুর গ্রামের রওশন আলীর মেয়ে তামান্না নূরা। তবে অন্যান্য পরীক্ষার্থীর চেয়ে একেবারেই ব্যতিক্রম তামান্না। কারণ জন্মগত থেকে দুই হাত ও এক পা নেই তামান্নার। তাই একটি মাত্র পায়ের ওপর ভরসা করেই এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করল সে। জানা গেছে, চলতি এসএসসি পরীক্ষায় ঝিকরগাছার বাঁকড়া জে কে হাই স্কুলের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে তামান্না। স্থানীয় বাকড়া ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বসেই পরীক্ষা দিচ্ছে সে। তামান্নার শিক্ষক ও সহপাঠীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে পেছনে ফেলে তামান্না কেজি, প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণির প্রতিটি ফলাফলে মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছে। পাশাপাশি ‘এডাস বৃত্তি পরীক্ষায়’ প্রতিবছরই বৃত
বাস কন্ডাক্টরের মেয়ে ইতিহাস গড়লেন রাজপথে

বাস কন্ডাক্টরের মেয়ে ইতিহাস গড়লেন রাজপথে

গলি থেকে রাজপথ, যাত্রা সহজ ছিল না। কিন্তু করে দেখালেন মেজর খুশবু কাঁওয়ার। গতকাল শনিবার প্রজাতন্ত্র দিবসে দিল্লির রাজপথে তাঁর হাত ধরে গড়ে উঠল ইতিহাস। এ বছর প্রজাতন্ত্র দিবসের থিম ছিল নারীশক্তির উত্থান। সেই উপলক্ষে প্রথমবার রাজধানীতে কুচকাওয়াজে অংশ নেন দেশের প্রাচীনতম আধা সামরিক বাহিনী, আসাম রাইফেলসের নারীরা। সেই দলের কমান্ডার ছিলেন মেজর খুশবু। কুচকাওয়াজে সকলকে নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যান তিনি। ৩০ বছরের খুশবু কাঁওয়ার আদতে রাজস্থানের জয়পুরের বাসিন্দা। বিবাহিতা এবং এক সন্তানের মা। পিতা ছিলেন বাস কন্ডাক্টর। কষ্ট করে লেখাপড়া শেখেন তিনি। ২০১২ সালে যোগ দেন ভারতীয় সেনাবাহিনীতে। এই মুহূর্তে আসাম রাইফেলসে রয়েছেন। উত্তর-পূর্বের রাজ্যে বিদ্রোহ দমন করা, ইন্দো মায়ানমার সীমান্তে চেকপোস্ট পাহারা দেওয়া, বেআইনি অস্ত্রশস্ত্রের খোঁজে তল্লাশি চালানো ইত্যাদি তাঁর দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।    
পা হারিয়েও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস্কেটবল তারকা আমান্দা

পা হারিয়েও বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস্কেটবল তারকা আমান্দা

আমান্দা মেরেলের ক্যান্সার ধরা পড়ার পর ১৪ রাউন্ড কেমোথেরাপি দেয়া হয়। অবশেষে কেটে বাদ দিতে হয়েছিল বাম পা। কিন্তু থেমে থাকার মেয়ে নন তিনি। অদম্য জীবনীশক্তি নিয়ে ফিরে এসে এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস্কেটবল দলের নির্ভরযোগ্য সদস্য আমান্দা। বিশ্ববিদ্যালয়ের দলের হয়ে প্রথম ম্যাচে খেলতে নেমে প্রথমে দু’বার পড়ে গিয়েছিলেন আমান্দা। কিন্তু হার মানতে শেখেননি যিনি, সামান্য পড়ে যাওয়া কী করে থামাবে তাকে! উঠে দাঁড়িয়ে পরপর তিন বার জাল চিনতে ভুল করেনি আমান্দার ছোঁড়া বল। আর কারো সহানুভূতি প্রয়োজন হয়নি আমান্দার। যদিও বল ছোঁড়ার সময় নিজস্ব পদ্ধতিতে তা করে থাকেন আমান্দা। দু’পায়েই না লাফিয়ে শুধু সামনের পা’য়ে ভর করেই লাফিয়ে ওঠেন তিনি। তাছাড়া দৌড়ানোর সময় বাম পা সাইকেলের মতো করে টেনে আনতে হয় তাকে। তার পরেও জীবনে সামনের দিকেই তাকাতে চান তিনি। কারো থেকে পিছিয়ে থেকে নয়, নিজেই নেতৃত্ব দিতে চান। মাত্র তিন বছর বয়সে তার
মি টু’র ধারায় এবার স্বরা ভাস্করের বিষ্ফোরক মন্তব্য

মি টু’র ধারায় এবার স্বরা ভাস্করের বিষ্ফোরক মন্তব্য

গত বছর '#মি টু' নিয়ে তোলপাড় ছিল গোটা বিশ্ব। একের পর এক যৌন হেনস্থার অভিযোগ তুলেছেন বিনোদন, কর্পোরেট, ক্রীড়া, সংবাদমাধ্যমের মতো বিভিন্ন পেশার নারীরা। অভিযুক্তদের তালিকায় উঠে এসেছে বিভিন্ন দেশের বহু হেভিওয়েট ব্যক্তির নামও। এবার নিজের '#মি টু' অভিজ্ঞতা নিয়ে মুখ খুললেন ভারতীয় অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর। কয়েক বছর আগে কীভাবে এক পরিচালকের হাতে যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছিলেন সেই দুঃসহ অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেছেন স্বরা। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, সম্প্রতি এক আলোচনা সভায় যোগ দিয়ে নিজের যৌন হেনস্থা হওয়ার কথা জানান ‘আনারকালি অফ আরা’র এই অভিনেত্রী। আক্ষেপ করে স্বরা ভাস্কর বলেন, ‘হেনস্থার শিকার হয়েছি, এটা বুঝতেই ৬ থেকে ৮ বছর লেগে যায় আমার।’ তবে অভিযুক্ত ওই পরিচালকের নাম না নিলেও বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন এই অভিনেত্রী। অভিযুক্ত ওই পরিচালক প্রসেঙ্গ তিনি বলেন, ‘রীতিমতো লুট করেছিলেন ওই পরিচালক।