লাইফস্টাইল | Women Words

লাইফস্টাইল

কখন, কতক্ষণ হাঁটা উচিত?

কখন, কতক্ষণ হাঁটা উচিত?

উইমেন ওয়ার্ডস ডেস্ক :: ব্যস্ততার কারণে নিয়মিত ভারী শরীরচর্চা করার সুযোগ আজকাল অনেকেরই থাকে না। কিন্তু ভালো থাকার জন্য নিয়মিত একটু হলেও শারীরিক পরিশ্রম জরুরি। চিকিৎসকরা বলে থাকেন, হাঁটা এমন একটা উপায়, যার মাধ্যমে কষ্টসাধ্য পরিশ্রম ছাড়াও সহজেই সুস্থ থাকা যায়। কখন হাঁটবেন? হাঁটতে গেলে প্রথমেই যে ভাবনাটা আসে সেটা হলো কখন হাঁটবেন? চিকিৎসকেরা আজকাল বলছেন, যেকোনো সময়েই হাঁটতে পারেন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আপনি হাঁটার জন্য যখন সময় বের করতে পারবেন, তখনই হাঁটবেন। তবে হাঁটার জন্য সবচেয়ে ভালো সময় বিকেল বেলা। যারা সকালে হাঁটতে যান, তাদের জন্য পরামর্শ, ঘুম থেকে উঠেই হাঁটতে যাওয়া ঠিক না। ঘুম থেকে ওঠার কমপক্ষে ৩০ মিনিট পর হাঁটতে বের হওয়া উচিত। কতক্ষণ হাঁটবেন? প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট হাঁটা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। তবে আপনি চাইলে সপ্তাহে প্রতিদিন নাও হাঁটতে পারেন। পাঁচ দিন ৩০ মিনিট করে ১৫০ মিনিট হাঁটলেও আপনি সুস
মাত্র কয়েক মিনিটের দুই ব্যায়ামেই উধাও হতে পারে ভুঁড়ি!

মাত্র কয়েক মিনিটের দুই ব্যায়ামেই উধাও হতে পারে ভুঁড়ি!

উইমেন ওয়ার্ডস ডেস্ক :: মেদ ঝরাতে হাঁটা থেকে শুরু করে ডায়েট বাদ নেই কিছুই! তবে পেটের নাছোড় মেদ এ সবেও সহজে গলতে চায় না। অনেকের আবার শরীরের বেশির ভাগ মেদই অনিয়মের হাত ধরে এসে জমা হয় পেটে। তবে প্রতি দিন একটু সময় ব্যয় করলেই পেটের মেদকেও সহজে জব্দ করা যায়। বাড়ি ফিরে কয়েক মিনিট সময়ই যথেষ্ট। নিয়ম করে ক্রাঞ্চ ও প্লাঙ্ক অভ্যাসেই সরবে পেটের মেদ। ফিটনেস বিশেষজ্ঞ সুকোমল সেনের মতে, ‘‘দিনের মধ্যে ন্যূনতম কিছু সময় বার করে কিছু ব্যায়ামের মধ্য দিয়ে দূর করতে হবে অবাঞ্ছিত মেদকে। আর পেটের মেদ দূর করতে ও পেশীকে মজবুত ও টানটান করে তুলতে ক্রাঞ্চ ও প্লাঙ্কের কোনও জবাব নেই।’’ ক্রাঞ্চ: মাটিতে পিঠ রেখে শুয়ে হাঁটু জোড়া ভাঁজ করুন যাতে আপনার পায়ের পাতা মাটিতে ঠেকে। হাত জোড়া মাথার পিছনে রাখুন। এর পর পেটের উপরে চাপ দিয়ে মাথাটি হাঁটুর দিকে নিয়ে যান। এই পজিশনে ৫ গুনু্ন। তার পর আগের অবস্থায় ফিরে আসুন। ১৫ বারে এক একটি
২১ বিলিয়নিয়ারের সাক্ষাৎকারে সাফল্যের ছয় অভ্যাস

২১ বিলিয়নিয়ারের সাক্ষাৎকারে সাফল্যের ছয় অভ্যাস

উদ্যোক্তাদের মনোবিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ রাফায়েল বদজিয়াগ তার ‘দ্য বিলিয়ন ডলার সিক্রেট: টুইয়েন্টি প্রিন্সিপাল অব বিলিওনার ওয়েলথ অ্যান্ড সাকসেস’ বইয়ে লিখেছেন, দীর্ঘমেয়াদে আপনার অভ্যাসগুলোই আপনার ভবিষ্যত নির্ধারণ করবে। একটি শক্তিশালী ভিত্তি ব্যতীত আপনি সম্পদ তৈরি বা সফল হতে পারবেন না। রাফায়েল দীর্ঘ পাঁচ বছর উদ্যোক্তাদের নিয়ে গবেষণা করেছেন। নিজে নিজেই চেষ্টা করে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন এমন ২১ জন উদ্যোক্তার সাক্ষাত্কার নিয়েছেন। সাক্ষাত্কারে নিয়ে সবারই ছয়টি অভ্যাস কথা মিল পেয়েছেন। আপনি যদি জীবনে সফল হতে চান তাহলে জেনে নিন তারা সবাই যে অভ্যাসগুলো মেনে চলতেন। সকালে ঘুম থেকে ওঠা সফল উদ্যোক্তাদের একটি সাধারণ অভ্যাস হলো সকাল বেলা ঘুম থেকে ওঠেন। রাফায়েল সাক্ষাৎকার নিয়েছেন এমন ব্যক্তিরা প্রায় সবাই জানিয়েছেন, তারা সবাই সকাল ৫ টা ৩০ মিনিটে ঘুম থেকে ওঠে যেতেন। তারা আরো জানান, সফল হওয়া পথে সকাল বেলা
পিরিয়ড চলাকালীন যে চারটি কাজ বর্জন করা আবশ্যক

পিরিয়ড চলাকালীন যে চারটি কাজ বর্জন করা আবশ্যক

পিরিয়ড নিয়ে আছে নানা ভ্রান্তি, চালু আছে নানা কথা। পিরিয়ড চলাকালে কি করা দরকার, কি করা উচিত নয়-এসব বিষয়ে জানা খুব জরুরী। পিরিয়ড চলাকালে চারটি কাজ করা যাবে না। সেগুলো বিস্তারিত জেনে নিন- ১.  পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে ঠান্ডা জল, কোমল পানীয় এবং নারিকেল খাবেন না। ২. এইসময় মাথায় শ্যাম্পু ব্যাবহার করবেন না। কারণ পিরিয়ডের সময় চুলের গোড়া আলগা হয় ফলে লোমকূপ উন্মুক্ত হয়ে পড়ে।শ্যাম্পু ব্যবহার এসময় অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এবং দীর্ঘস্থায়ী মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। ৩. এইসময় শশা খাবেন না। কারণ শশার মধ্যে থাকারস পিরিয়ডের রক্তকে জরায়ু প্রাচীরে আটকে দিতে পারে। যার ফলে আপনার বন্ধ্যা হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ৪. এছাড়াও লক্ষ্য রাখবেন, পিরিয়ডের সময় যেন শরীরে শক্ত কিছুর আঘাত না লাগে, বিশেষত পেটে। পিরিয়ডের সময়টায় জরায়ু খুব নাজুক থাকে ফলে অল্প আঘাতেই মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। যার ফলে পরবর্তীতে জরায়ু ক্যান্সার, জরায়ু
চোখের নিচের কালি দূর করার উপায়?

চোখের নিচের কালি দূর করার উপায়?

দেখা হলেই পরিচিতজনরা জানতে চান-কত দিন ঘুম হয়না, চোখের নিচে কালি পড়েছে কেন? এমনতর প্রশ্নে বিব্রত হন অনেকেই, পথ খোঁজেন এই কালো দাগ থেকে মুক্তি পাওয়ার। এরই মধ্যে যদি অনেক কিছু করেও চোখের চারপাশের কালো দাগ দূর না হয়ে থাকে। তবে চেষ্টা করে দেখুন পুদিনা পাতার প্যাক দিয়ে। খুব অল্প সময়েই পার্থক্য বুঝতে পারবেন। জেনে নেই সেই রহস্য উপকরণ ও প্যাকের ব্যবহার: অর্ধেক টমেটো, ১৫-২০টি পুদিনা পাতা, এক চা চামচ লেবুর রস ও সামান্য লবণ একসঙ্গে ব্লেন্ড করে নিন। মিশ্রণটি চোখের নিচে পুরু করে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। একটি আলু খোসা ছাড়িয়ে নিয়ে ছোট ছোট টুকরো করে নিন। এরপর আলু ও পুদিনা পাতা ব্লেন্ড করুন। তুলা ভিজিয়ে চোখের ওপর রেখে দিন ২০ মিনিট। সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন এই প্যাক লাগালে ধীরে ধীরে চোখের চারপাশের কালো দাগ দূর হবে। তবে নিয়মিত যত্নের সঙ্গে পর্যাপ্ত ঘুমাতেও হবে। বাইরে যাওয়ার সময় অবশ্যই
মাতৃত্বকালীন ছুটি শেষে বাংলাদেশের কর্মজীবী মায়েদের উদ্বেগ

মাতৃত্বকালীন ছুটি শেষে বাংলাদেশের কর্মজীবী মায়েদের উদ্বেগ

বাংলাদেশে একজন মা যখন মাতৃত্বকালীন ছুটিতে থাকেন, তখন তার দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়, এই ছুটি শেষ হওয়ার পর তার সন্তানের দেখভাল কিভাবে হবে। যখন অফিস শুরু করবেন তখন তার সন্তানকে কার কাছে রেখে যাবেন-এমন আরও নানা বিষয় নিয়ে উদ্বিগ্নতায় ভোগেন এই মায়েরা। তেমনই একজন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা সাইদা হক। তার মাতৃত্বকালীন ছুটি শুরু হয়েছে সন্তান জন্ম দেয়ার কয়েকদিন আগে থেকেই। কিন্তু এখন থেকেই তিনি দুশ্চিন্তা করছেন যে এই ছুটি শেষ হওয়ার পর তার সন্তানের দেখভাল কিভাবে হবে। মাতৃত্বকালীন ছুটি পর্যাপ্ত না থাকা সেইসঙ্গে সন্তানকে কার কাছে রেখে যাবেন সেটাই যেন এখন তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। "প্রেগনেন্সি লিভ শুরু হওয়ার আগেও আমি বেশ কয়েকবার অসুস্থ হয়েছিলাম, কিন্তু তারপরও ছুটি নেইনি। চেয়েছি যে ছুটির পুরো সময়টা যেন বাচ্চাকে দিতে পারি। এখন ভাবি ছুটি শেষ হওয়ার পর কি করবো?" "
ব্যর্থতা কাটিয়ে সফল হওয়ার যে আট পরামর্শ দিচ্ছেন বিখ্যাত নারীরা

ব্যর্থতা কাটিয়ে সফল হওয়ার যে আট পরামর্শ দিচ্ছেন বিখ্যাত নারীরা

সফল হওয়া সহজ কাজ নয়। নারী বা পুরুষ যেকোন মানুষের জন্যই কঠিন কাজ সেটি। একজন নারীর জন্য সেটা আরো কঠিন। কিন্তু সফল আর জ্ঞানী হিসেবে পরিচিত বিশ্বের কয়েকজন বিখ্যাত নারী বলছেন জীবনে কয়েকটি মূলমন্ত্র অনুসরণ করতে পারলে তা যে কাউকে সফল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে সাহায্য করবে। ১. সবার আগে নিজেকে গুরুত্ব দিন জীবনের যে ক্ষেত্রেই আপনি সফল হতে চান, আপনাকে নিজের যত্ন নিতে শিখতে হবে। যদি আপনি নিজেকে সবচাইতে বেশি গুরুত্ব দিতে না পারেন, তাহলে আপনি জীবনের ভারসাম্য খুঁজে পাবেন না। এক্ষেত্রে নিজের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে বলছেন নামকরা অভিনেত্রী এমা থম্পসন। এরপরই আসবে আপনার সবচাইতে কাছের মানুষেরা, মানে পরিবার ও ঘনিষ্ঠ মানুষেরা। তাদের জীবনের দৈনন্দিন খবরাখবর রাখুন। "যদিও হয়ত রোজ এ কাজটি করা কঠিন, তবু চেষ্টা করুন।" এর পর শুরু করুন নিজের কাজ। ২. সামনে এগিয়ে যাওয়া থামাবেন না দ্বিতীয় বি
বাংলাদেশি পাসপোর্টে ১০০ দেশ ঘুরেছেন আজমেরি

বাংলাদেশি পাসপোর্টে ১০০ দেশ ঘুরেছেন আজমেরি

'আমি সারা পৃথিবীর সব দেশে আমার পায়ের চিহ্ন রাখতে চাই। এবং সেটা করতে চাই বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়েই।' কথাগুলো বাংলাদেশি বিশ্বপর্যটক কাজী আসমা আজমেরির। এ পর্যন্ত বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে ১০০-র বেশি দেশে ঘুরেছেন তিনি। তার পরিকল্পনা, পৃথিবীর সব দেশ সফরের। কেন বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে বিশ্বভ্রমণের পরিকল্পনা করেছেন তিনি? এ প্রশ্ন করলে কাজী আজমেরি বলেন, আমি ২০১০ সালে ভিয়েতনাম গিয়েছিলাম, ইচ্ছে ছিল সেখান থেকে কম্বোডিয়া যাবো। কিন্তু ইমিগ্রেশনের লোকেরা আমার রিটার্ন টিকেট নেই এবং বাংলাদেশি পাসপোর্ট দেখে আমাকে সে অনুমতি দেয় নি।" "সেদেশের ইমিগ্রেশন আমাকে ২৩ ঘন্টা জেলে বন্দী করে রাখে। আমি খুব কান্নাকাটি করেছিলাম।" "ওই ২৩ ঘন্টা জেলে থাকার সময়ই আমি চিন্তা করলাম, আমাকে এমন কিছু করতে হবে যাতে বাইরের মানুষ বাংলাদেশের পাসপোর্টকে সম্মানের চোখে দেখবে, তাদের হয়রানি করবে না" - বলছিলেন কাজী আজমেরি। বাং
সিঁদুরে ভয়াবহ মাত্রার সিসা, সতর্ক করছেন গবেষকরা

সিঁদুরে ভয়াবহ মাত্রার সিসা, সতর্ক করছেন গবেষকরা

কিছুদিন পরেই দুর্গা পুজা। সিঁদুর খেলা নিয়ে বাঙালির আবেগে ভাসার দিন আসছে। এর আগেই সিঁদুর নিয়ে আশঙ্কার কথা শোনালেন গবেষকরা। নিউ জার্সির পিসকাটাওয়ের রুটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানাচ্ছেন, ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিক্রিত অধিকাংশ সিঁদুরেই মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণে লেড (সিসা) রয়েছে। যা ডেকে আনতে পারে নানা শারীরিক সমস্যা। আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। বিবাহিত হিন্দু নারীরা নিয়মিত ভাবে ব্যবহার করেন সিঁদুর। সিঁথি ছাড়াও কপালে সিঁদুরের টিপও পরেন বয়স্ক নারীরা। যে কোনও পুজার সময় সিঁদুরের টিকা দেওয়ার রেওয়াজও অন্যতম। তাই সিঁদুরকে আরও আকর্ষণীয় লাল রং দিতে লেড টেট্রক্সাইড ব্যবহার করে অনেক সিঁদুর প্রস্তুতকারক সংস্থা। এই গবেষণায় ব্যবহৃত ১১৮টি সিঁদুরের নমুনার মধ্যে ৯৫টিই এসেছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সির বিভিন্ন দক্ষিণ এশীয় দোকান থেকে। ২৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল মুম্বই, দিল্লি-স
জীবন বাচাঁতে লাল মাশরুম

জীবন বাচাঁতে লাল মাশরুম

এম. এস. এ  মাসুম খান সৃষ্টিকর্তার হাজারও রহস্যে ঘেরা সৃষ্টির মধ্যে বিরল কিছু সৃষ্টি, শুধুই সৃষ্টির সেরা জীব মানব স্বাস্থ্যের কল্যাণে নিহিত রয়েছে অন্তকাল ধরে। সৃষ্টিকর্তার ও প্রকৃতির আর্শীবাদ পুষ্ট এমনি এক বিরল প্রজাতির উদ্ভিদ লাল মাশরুম বা গ্যানোডার্মা লুসিডাম। পৃথিবীর  প্রায় সব দেশেই প্রাচীনকাল থেকে  মাশরুম পুষ্টিকর, সুস্বাদু ও জনপ্রিয় খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কিন্তু বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের মাশরুমের নাম ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে বিরূপ ধারণা থাকার কারণে অনেকেই মাশরুমকে খাদ্য তালিকায় রাখছেন না। মাশরুম আসলে উচ্চশ্রেণীর অন্তরগত এক ধরণের ছত্রাক গোত্রীয় সম্পূরক খাদ্য। তাই সম্পূর্ণ নিরাপদ খাওয়ার উপযোগী। ছত্রাকের বংশবিস্তারের জন্য যে ফলটি হয় তাকেই মাশরুম বলে। আর খাবারের সম্পূর্ণ অনুপযোগী বা বিষাক্ত ছত্রাককে টোডষ্টুল বা ব্যাঙের ছাতা বলা হয়। হাজার বছর পূর্বেও এ উপমহাদেশে রাজকীয় খাদ্যের তালিকা