নভেম্বর ২০, ২০২১ - Women Words

Day: নভেম্বর ২০, ২০২১

সব ছাত্রীর বিয়ে, কেউ অংশ নিলো না পরীক্ষায়

সব ছাত্রীর বিয়ে, কেউ অংশ নিলো না পরীক্ষায়

নাটোরের বাগাতিপাড়া মহিলা মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার সকল পরীক্ষাথীর বিয়ে হয়ে যাওয়ায় তারা কেউ পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেনি। বাগাতিপাড়া মহিলা মাদরাসার প্রধান জানান, করোনা মাহামারীর মধ্যে এসব পরীক্ষার্থীর বিয়ে হয়ে যাওয়ায় তারা কেই পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেনি। গত ১৪ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে দাখিল পরীক্ষা । এ বছর বাগাতিপাড়া উপজেলার পেড়াবাড়িয়া মাদরাসা কেন্দ্রে ৫টি মাদরাসার পরীক্ষার্থীরা দাখিল পরীক্ষা অংশ নিচ্ছে। মাদরাসার মোট ৯৮ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ১৫ জন পরীক্ষার্থী বাগাতিপাড়া মহিলা মাদরাসার শিক্ষার্থী। ওই মাদরাসা থেকে এ বছর মোট ১৫ শিক্ষার্থীর পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা। কিন্তু কেউই পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। এ বিষয়ে বাগাতিপাড়া মহিলা মাদরাসা সুপার আব্দুর রউফ জানান, চলতি বছরে তার মাদরাসা থেকে ১৫ জন ছাত্রীরই পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা মহামারিতে সব ছাত্রীর বিয়ে হয়ে যাওয়ায় কেউই পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। তবে প্রবেশ পত
নারীত্ব, যৌনতা, আবেগ, শারীরিক জটিলতা: মেনোপজের প্রভাব নিয়ে যত প্রশ্ন

নারীত্ব, যৌনতা, আবেগ, শারীরিক জটিলতা: মেনোপজের প্রভাব নিয়ে যত প্রশ্ন

শাহনাজ পারভীন মেনোপজ, বাংলায় যাকে বলে রজঃনিবৃত্তি, অর্থাৎ নারীদের একটি বয়সের পর পুরোপুরি মাসিক ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে যাওয়া। পৃথিবীর সকল নারীর জীবনে একটি বয়সে এসে এটি ঘটে কিন্তু বাংলাদেশে শব্দটি নিয়ে সহসা আলোচনা হতে দেখা যায় না। মেনোপজ নারীর শরীরে প্রচুর পরিবর্তন নিয়ে আসে। সঠিক যত্ন না নিলে অনেক স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। কিন্তু বাংলাদেশে নারীরা মেনোপজের প্রভাব নিয়ে কথা বলেন না, এর জন্য কোন প্রস্তুতি নেন না এবং নীরবে মানিয়ে নেন। মেনোপজ নিয়ে কয়েকজন নারীর ভাবনা ঢাকার একটি আবাসিক এলাকায় ফ্ল্যাটের দরজা খুলে শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন ঘরের গৃহকর্ত্রী। বসতে বলে চায়ের জোগাড় করতে গেলেন। মেনোপজের মতো একটি বিষয় নিয়ে কথা বলতে কিছুটা অস্বস্তি বোধ করছিলেন। দুই ছেলে মেয়ে চারপাশে আছে কিনা একটু নজর বুলিয়ে নিলেন। দুই ছেলেমেয়ে যার যার ঘরে গান শুনছে দেখে একটু আশ্বস্ত হলেন। কিন্তু আসল ক
সন পদক পেলেন বাংলাদেশের স্থপতি মেরিনা

সন পদক পেলেন বাংলাদেশের স্থপতি মেরিনা

মানবিক ঘর তৈরির জন্য যুক্তরাজ্যের মর্যাদাপূর্ণ সন পদক পেয়েছেন বাংলাদেশি স্থপতি মেরিনা তাবাশ্যুম। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিশ্বের দক্ষিণাঞ্চল থেকে প্রথম স্থপতি হিসেবে মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কার জিতেছেন মেরিনা। সনের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুয়ায়ী, ২০১৭ সাল থেকে যুক্তরাজ্যের স্থপতি স্যার জন সনের নামে এই পুরস্কার দেওয়া হয়। মানুষের জীবনে স্থাপত্যের গুরুত্ব ভালোভাবে বোঝার জন্য উৎসাহিত করে এ পুরস্কার। স্থপতি, শিক্ষাবিদ ও সমালোচকদের কাজের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতিবছর এ পুরস্কার দেওয়া হয়। বিশিষ্ট স্থপতি, সমালোচক ও কিউরেটরদের একটি প্যানেল পুরস্কারের জন্য যোগ্য প্রার্থী নির্বাচন করেন, যাঁর নেতৃত্বে থাকেন স্যার জন সন জাদুঘরের সাবেক ট্রাস্টি স্যার ডেভিড চিপারফিল্ড। বিজয়ী লন্ডনে একটি বিশেষ বার্ষিক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেন, যা পরে জাদুঘর কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করে। এ ছাড়া ১৮৩৫ সালে আ