ভূস্বর্গের প্রথম নারী বাসচালক - Women Words

ভূস্বর্গের প্রথম নারী বাসচালক

যদি লক্ষ্য থাকে অটুট, থাকে নিজের ওপর আস্থা, তাহলে রক্তচক্ষু উপেক্ষা করা যায় অবলীলায়। দক্ষ হাতে স্টিয়ারিং ধরে পৌঁছানো যায় গন্তব্যে। এ কথা আবারও প্রমাণ করলেন ভূস্বর্গখ্যাত জম্মু-কাশ্মিরের এক নারী। ত্রিশ বছর বয়সী ওই নারীর নাম পূজা দেবী। ভারতের জম্মু-কাশ্মিরে যাত্রীবাহী বাসের প্রথম নারী চালক হিসেবে নজির গড়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) একটি যাত্রীবাহী বাস চালিয়ে কাঠুয়া থেকে তিনি জম্মুতে যান। এরই সঙ্গে পুরুষতান্ত্রিক সমাজের রক্তচক্ষুকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে শুরু হলো ট্যাবু ভাঙার যাত্রা। এ সময় তার বড় ছেলে এবং ক্লাস সিক্সে পড়া মেয়ে তার পাশের সিটে বসা ছিল।

কাঠুয়া জেলার সন্ধ্যার বাসলি নামক প্রত্যন্ত গ্রামে বড় হয়েছেন পূজা দেবী। তিনি এখন দুই সন্তানের মা।

পূজা বলেন, জম্মু-কাঠুয়া-পাঠানকোট একটি কঠিন রাস্তা। মালবাহী ভারী গাড়ি চলে এই মহাসড়কে। কিন্তু এই চ্যালেঞ্জ নেওয়াই তো ছিল আমার স্বপ্ন। অবশেষে তা সত্যি হলো। এখন আমি আত্মবিশ্বাসে আরও ভরপুর।

তিনি বলেন, কৈশোর থেকেই আমি বড় গাড়ি চালানোর স্বপ্ন দেখেছি। প্রথম দিকে পরিবার সেটা সমর্থন করেনি। কিন্তু চাকরিবাকরি করার মতো শিক্ষাও আমার নাই। তাই পেশা হিসেবে নেওয়ার জন্য আমি প্রথমে ট্যাক্সি চালানো শিখি। জম্মুতে আমি ট্রাকও চালিয়েছি। অবশেষে বাস চালানোর স্বপ্ন সত্যি হলো।

তিনি বলেন, মেয়েরা এখন বিমান চালাচ্ছে। শুধু পুরুষরাই যাত্রীবাহী বাস চালাতে পারে- এই এলাকার ভ্রান্ত এ ধারণা আমি ভেঙে দিতে চেয়েছি। এর মাধ্যমে চ্যালেঞ্জ নিতে ইচ্ছুক নারীদেরকে বলতে চেয়েছি যে, চাইলেই স্বপ্ন সত্যি হয়।

তিনি বলেন, অনেকেই ড্রাইভিং সিটে একজন নারীকে দেখে বাঁকা চোখে তাকান। কিন্তু সেসব আমি ভ্রুক্ষেপও করিনি। আমি আমার কাজে মনোযোগ দিয়েছি। আমার পুরুষ সহকর্মীরা আমাকে স্বাগত জানিয়েছেন।

আস্থা রাখার জন্য পূজা তার বাস কোম্পানির মালিককে কৃতজ্ঞতা জানান।