ব্রিটেনের ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা ডা. ফারজানার বিরল অর্জন - Women Words

ব্রিটেনের ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা ডা. ফারজানার বিরল অর্জন

করোনা মহামারীতে ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) এ কর্মরত চিকিৎসক, নার্সসহ বিভিন্ন শাখায় যারা ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা হিসাবে কোভিড ১৯ রোগীদের সেবা দিয়েছেন, তাদের মানবিকতা ও সাহসিকতার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে এনএইচএস তাদের স্টাফদের মধ্যে সেরাদের তালিকা তৈরি করেছে । এই শ্রেষ্ঠদের অন্যতম বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত চিকিৎসক ফারজানা হোসেন । ফারজানা হোসেন বিশ্বের অন্যতম ভার্চৃয়াল সার্জন এবং ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত অধ্যাপক সফি আহমেদের স্ত্রী।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চিকিৎসক সফি আহমদের চাচাত ভাই লন্ডন প্রবাসী সরওয়ার আহমদ।

তিনি জানান, ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) এ কর্মরত চিকিৎসক, নার্সসহ বিভিন্ন শাখায় যারা ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা হিসাবে শ্রেষ্ঠদের তালিকা করা হয়েছে। সেখানে স্থান পেয়েছেন ১২জন। শ্রেষ্ঠদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন এবং মানুষকে ভালো কাজে উৎসাহিত করতে ব্রিটেনের বিলবোর্ডে তাদের ছবি প্রদর্শন করা হয়েছে। এমন বিরল সম্মান পাওয়াদের অন্যতম চিকিৎসক ফারজানা হোসেন। তার এমন কর্ম ব্রিটেনে বসবাসরত বাংলাদেশীদের জন্য গৌরব বয়ে এনেছে ।

প্রসঙ্গত, চিকিৎসাক্ষেত্রে নতুন দিগন্ত উন্মোচন করা সিলেটের বিয়ানীবাজারের কৃতি সন্তান ডা. সফি আহমেদ ব্রিটেনের সবচেয়ে প্রভাবশালী চিকিৎসক হিসাবে সম্মাননা পেয়েছিলেন। গুগল গ্লাস ব্যবহার করে রোগীর অস্ত্রপচার সম্প্রচার করে তিনি চিকিৎসাস্ত্রে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন। তাঁর এ বিরল কৃতিত্ব অর্জন করায় ‘ব্রিটিশ-বাংলাদেশি পাওয়ার অ্যান্ড ইনসপায়ারেশন (বিবিপিআই)’ তাঁকে এ সম্মানে ভূষিত করে। এর আগে একই সম্মানে ভূষিত হয়েছেন ডা. সফির বড় বোন ক্রাউন কোর্টে প্রথমবারের মত কোনো বাংলাদেশি হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া বিচারিক জজ ব্যারিস্টার স্বপ্নারা খাতুন।

ডা. সফি আহমেদের বাবা প্রয়াত মিম্বর আলী মুক্তিযুদ্ধের সফল সংগঠক ও বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ইউকে’র সভাপতি ছিলেন। তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে ডা. সফি তৃতীয়। চিকিৎসক স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে ব্রিটেনের তাদের গোছানো সংসার। তাঁর গ্রামের বাড়ি সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার মোল্লাপুর ইউনিয়নের মোল্লাগ্রামে।