খাদিজা নির্যাতন ঘটনা : পদক্ষেপ গ্রহণে মানবাধিকার কমিশনকে ৬০ দিন সময় - Women Words

খাদিজা নির্যাতন ঘটনা : পদক্ষেপ গ্রহণে মানবাধিকার কমিশনকে ৬০ দিন সময়

সাত বছর আগে রাজধানীর মিরপুরে নির্যাতিত হন গৃহকর্মী খাদিজা। ওই নির্যাতনের ঘটনার পর খাদিজার মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থতার অভিযোগে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের বিরুদ্ধে দায়ের করা রিটের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। আদালত তার রায়ে, ৬০ দিনের মধ্যে খাদিজা নির্যাতনের বিষয়ে শুনানি সম্পন্ন করে কী প্রতিকার, ক্ষতিপূরণের সুপারিশ বা অন্য যেসব সুপারিশ প্রস্তাব করা যায় তা করতে কমিশনকে নির্দেশ দিয়েছেন।

গত ১৮ জুন পূর্ণাঙ্গ এ রায়ে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিল স্বাক্ষর করেন। রায়ে হাইকোর্ট মানবাধিকার কমিশনের প্রতি বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। সেগুলো হলো-

১. খাদিজা নির্যাতন মামলার অভিযোগে কমিশন মানবাধিকার বক্ষায় এবং প্রতিকার দিতে মারাত্মকভাবে ব্যর্থ এবং আইনি অবহেলার পরিচয় দিয়েছে।

২. কমিশন যেভাবে আদেশ দিয়েছে তাতে কোনোভাবেই পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায় না যে, এ আদেশগুলো কমিশনের আদেশ নাকি কোনও সদস্যের আদেশ এবং ওই সদস্য এমন আদেশ আদৌ দিতে পারে কিনা। মানবাধিকার কমিশন আইনের ১১(৩) এবং ২৮ ধারার বিধানে এ ধরনের আদেশের বৈধতা প্রশ্নবিদ্ধ।

৩. কমিশনকে এই মর্মে নির্দেশনা দেওয়া যাচ্ছে যে, কমিশন যেন সঠিক বিধি মেনে সদস্য বা সদস্যদের পূর্ণ নাম উল্লেখ করে আদেশ পাস করে এবং আদেশের সই মুহুরি (নকল কপি) যাতে ভুক্তভোগী পেতে পারেন তার ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

৪. কমিশন যে খসড়া বিধিমালাটি তৈরি করে রেখেছে তা অতি দ্রুত মানবাধিকার সংগঠনগুলোর সঙ্গে আলোচনা চূড়ান্ত করে গেজেটের মাধ্যমে প্রকাশ করবে।

৫. আইনের ১৬ এবং ১৮ ধারার বিধান অনুযায়ী মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে অনুসন্ধান বা ক্ষেত্রমতো তদন্ত করে যথাযথ সুপারিশ করার ক্ষমতা প্রয়োগের জন্য কমিশনকে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।

৬. কোনও সরকারি কর্তৃপক্ষ বা কর্মকর্তা কমিশনের আদেশ-নির্দেশ কর্ণপাত/বিবেচনা না করলে বা অবহেলা করলে সংবিধানের ১০২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগের কাছে আবেদন (রিট মামলা) করার জন্য কমিশনকে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।

৭. কমিশন আইনগতভাবে একটি আধা-বিচারিক কর্তৃপক্ষ। সুতরাং, এটি অবশ্যই ন্যায়বিচারের সব নীতি মেনে চলতে বাধ্য। এই রায় প্রাপ্তির ৬০ দিনের মধ্যে খাদিজা নির্যাতনের বিষয়ে শুনানি সম্পন্ন করে কী প্রতিকার, ক্ষতিপূরণের সুপারিশ বা অন্য যেসব সুপারিশ প্রস্তাব করা যায় তা করতে কমিশনকে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। যদি শুনানিতে খাদিজার মানবাধিকার লঙ্ঘনের সত্যতা পাওয়া যায় তাহলে আইনের ১৯ ধারা মতে খাদিজা বরাবর যথাযথ ক্ষতিপূরণের সুপারিশ কমিশন করবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে একটি জাতীয় দৈনিকে ‘আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসেও গৃহকর্মী নির্যাতন’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত ওই সংবাদ থেকে জানা যায়, মিরপুরে গৃহকর্তা কর্তৃক নির্মম নির্যাতনের শিকার খাদিজাকে পুলিশ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমসহ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। ঢাকা মেডিক্যালে বোর্ড গঠন করে দু’সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে খাদিজাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। খাদিজার শরীরে একাধিক মারধরের চিহ্নসহ দীর্ঘদিন অপুষ্টিতে ভোগার আলামত পাওয়া যায়। কিন্তু মিরপুর থানা পুলিশ খাদিজাকে নির্যাতনের বিষয়ে কোনও মামলা দায়ের করেনি।

ওই পত্রিকার প্রতিবেদন সংযুক্ত করে মানবাধিকার সংগঠন চিলড্রেন চ্যারিটি বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন (সিসিবি ফাউন্ডেশন) জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে একটি অভিযোগ দায়ের করে। ওই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মানবাধিকার কমিশন মিরপুর থানা পুলিশ কর্তৃক খাদিজার প্রতি মানবাধিকার লঙ্ঘনের সত্যতা খুঁজে পায় এবং কমিশন মিরপুর থানা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রতিবেদন চেয়ে পাঠায়। এভাবে চলতে থাকায় সিসিবি ফাউন্ডেশন লক্ষ করে, কমিশন তার আইনের অধীনে যথাযথ ব্যবস্থা এবং সাময়িক কোনও পদক্ষেপ না নিয়ে একের পর এক পত্র দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর। পাঁচ বছর ধরে মানবাধিকার কমিশন ২৬টি অর্থহীন তাগিদপত্র দিয়েছে। অথচ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি পত্রেরও জবাব দেয়নি। এ বিষয়ে সিসিবি ফাউন্ডেশন মানবাধিকার কমিশনকে আইনি নোটিশ পাঠায়। পরে কমিশনের সর্বশেষ আদেশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে ২০১৮ সালে একটি রিট দায়ের করে সিসিবি ফাউন্ডেশন। সিসিবি ফাউন্ডেশের পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন ব্যরিস্টার মো. আব্দুল হালিম, অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান ও জামিউল হক ফয়সাল। মানবাধিকার কমিশনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভাকেট ফৌজিয়া করিম ফিরোজ।

ওই রিট মামলায় মানবাধিকার কমিশনের প্রতি রুল জারি হয় এবং শুনানি শেষে ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর হাইকোর্ট রায় প্রদান করেন যে, মানবাধিকার কমিশন আইনে অর্পিত তার দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছে না। গৃহকর্মী খাদিজা নির্যাতনের মতো মারাত্মক মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে মানবাধিকার কমিশন যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে পরিষ্কার যে, তারা দায়িত্ব-কর্তব্য সম্পর্কে সজাগ/সচেতন নয়। দেশের মানবাধিকার লঙ্ঘনে প্রতিকার দিতে মানবাধিকার কমিশন আইনে অর্পিত দায়িত্ব পালনে অবহেলার পরিচয় দিয়েছে।

আদালত রায়ে স্পষ্টভাবে মত দেন যে, ‘মানবাধিকার রক্ষায় কমিশন চরম অদক্ষতার পরিচয় দিয়েছে এবং কমিশন জেগে জেগে ঘুমাচ্ছে। পাঁচ বছর ধরে কীভাবে কমিশন এতটা অদক্ষতা, অকার্যকর ও দায়িত্বহীনতার কাজ করে অভিযোগটি ঝুলিয়ে রেখেছে। কমিশনকে আইনে দেওয়ানি আদালতের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে কিন্তু সেই ক্ষমতাও কমিশন প্রয়োগ করেনি এবং এই পাঁচ বছরে খাদিজা ও তার পরিবার কমিশনের দায়িত্বহীনতার কারণে পুরো সিস্টেমের ওপর থেকে বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছে। খাদিজার একটিমাত্র মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে পর্যালোচনায় আমাদের সন্দেহের কোনও অবকাশ নেই যে, কমিশন, কমিশনের চেয়ারম্যান ও সদস্যরা তাদের ওপর অর্পিত আইনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছে।’ সূত্র : বাংলা ট্রিবিউন