করোনা সংকটে চিকিৎসা পেশায় ফিরলেন মিস ইংল্যান্ড - Women Words

করোনা সংকটে চিকিৎসা পেশায় ফিরলেন মিস ইংল্যান্ড

মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে আক্রান্তদের সেবা দিতে চিকিৎসা পেশা ফিরলেন মিস ইংল্যান্ড ভাষা মুখার্জি। ইতিমধ্যে ভারত থেকে যুক্তরাজ্যে ফিরে পুরনো কর্মস্থল পিলগ্রিম হাসপাতালে যোগ দিয়েছেন তিনি।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত বাঙালি তরুণি ভাষা মুখার্জি ২০১৯ সালের মিস ইংল্যান্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য চিকিৎসা পেশা ছেড়েছিলেন। সে বছর প্রতিযোগিতায় সেরা নির্বাচিত হওয়ার পর মডেলিংয়ে যোগ দেন তিনি। তবে এবার করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে উদ্ভূত বৈশ্বিক এই স্বাস্থ্য সংকটে ফের চিকিৎসা পেশায় ফিরলেন মিস ইংল্যান্ড।

ব্রিটিশ হাইকমিশনের সঙ্গে কলকাতায় কাজ করার পর গত বুধবার জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্ট হয়ে যুক্তরাজ্যে ফেরেন ভাষা মুখার্জি। এর আগে কলকাতায় ৮ দিন সেলফ আইসোলেশনে থাকেন তিনি। পরে যুক্তরাজ্যেও সেলফ আইসোলেশনে থাকতে হয় তাকে। তবে সোমবার সেলফ আইসোলেশন পর্ব পার করে কাজে যোগ দিচ্ছেন বলে সিএনএন’কে জানান ভাষা।

সিএনএন’কে তিনি বলেন, আমি বাড়ি ফিরতে চেয়েছিলাম। আমি চাইছিলাম বাড়ি ফিরেই কাজে যোগ দিতে। মিস ইংল্যান্ড হয়ে ইংল্যান্ডের জন্য কাজ করার এটাই মোক্ষম সময়।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানায়, মার্চের শুরুতে মিস ইংল্যান্ড তার জন্মস্থান ভারতে দাতব্য প্রতিষ্ঠান কভেন্ট্রি মার্সিয়া লায়ন্স ক্লাবের আমন্ত্রণে চার সপ্তাহের জন্য গিয়েছিলেন। সেখানে স্কুলের শিক্ষার্থীদের সচেতন করে তুলতে ও প্রতিবন্ধীদের সাহায্যে কাজ করছিলেন তিনি। তবে যুক্তরাজ্যে এরিমধ্যে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় সাবেক কর্মস্থল পিলগ্রিম হাসপাতালের সহকর্মীরা তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তারা জানান, যুক্তরাজ্যে কী কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে তাদের। ভাষা মুখার্জি পরে পিলগ্রিম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার কাজে যোগ দেওয়ার ইচ্ছার কথা জানান।

ভাষা মুখার্জি ভারতে জন্মগ্রহণ করেন। তবে নয় বছর বয়েসেই পরিবারের সঙ্গে পাড়ি জমান ইংল্যান্ডে। সেখানে নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চিকিৎসা বিজ্ঞান এবং মেডিসিন সার্জারির ওপর পৃথক দুইটি ব্যাচেলর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। ভাষা মুখার্জি ২০১৯ সালের মিস ইংল্যান্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেন ও সেরা নির্বাচিত হন। এরপর চিকিৎসা পেশা ছেড়ে দিয়ে মডেলিং ও বিভিন্ন দাতব্য প্রতিষ্ঠানের হয় কাজ শুরু করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, বোস্টনের এ হাসপাতালে জুনিয়র চিকিৎসক পদে চাকরি করতেন চিকিৎসা বিষয়ে দুটি পৃথক ডিগ্রিধারী ভাষা মুখার্জি।