বিক্ষোভে উত্তাল ভারত, প্রণব মুখার্জির মেয়ে আটক - Women Words

বিক্ষোভে উত্তাল ভারত, প্রণব মুখার্জির মেয়ে আটক

নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ভারতে বিক্ষোভ চলছেই। চলছে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘাতও। ধরপাকড়ও চলছে। রাজধানী নয়াদিল্লিতে বিক্ষোভের সময় আজ শুক্রবার ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির মেয়ে শর্মিষ্ঠা মুখার্জিসহ ৫০ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

নয়াদিল্লির অন্যতম প্রাচীন একটি মসজিদের সামনে বিক্ষোভ করছেন হাজারো মানুষ। উত্তর প্রদেশের ১৩ জেলায় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। সব মিলিয়ে পুরো দেশেই উত্তাপ ছড়াচ্ছে বিক্ষোভের আগুন। বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন শহরে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

দ্য ইকোনমিক টাইমসের খবরে বলা হয়, আজ নয়াদিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর বাসভবন এলাকায় বিক্ষোভের সময় সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণবের মেয়ে শর্মিষ্ঠাকে আটক করে পুলিশ। শর্মিষ্ঠা নারী কংগ্রেসের দিল্লি শাখার প্রধান। এ সময় শর্মিষ্ঠার সঙ্গে অন্তত ৫০ জন নারী নেতা-কর্মীকেও আটক করা হয়। আটক হওয়ার পর শর্মিষ্ঠা বার্তা সংস্থা পিটিআইকে বলেন, তাঁদের আটক করে মন্দির মার্গ পুলিশ স্টেশনে নেওয়া হয়েছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, পুরোনো দিল্লির জামা মসজিদের সামনে এক বিক্ষোভের সময় দলিত নেতা চন্দ্রশেখর আজাদকে পুলিশ আটক করেছিল। পরে পুলিশ হেফাজত থেকে পালিয়ে যান চন্দ্রশেখর। দিল্লিতে পুলিশ জামা মসজিদের সামনের রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে। কিছু মেট্রো স্টেশনও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে বিক্ষোভ ঠেকাতে পুরো ভারতের বিভিন্ন শহরে মোবাইল ইন্টারনেট সেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, মুজাফফরনগর, বুলন্দশর, গোরক্ষপুর, ফিরোজাবাদ, আলীগড়, মিরাট, বারাণসীসহ বিভিন্ন শহর থেকে সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে।

পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়েছে, দিনটা শুক্রবার বলে দেশের সর্বত্র গুরুত্বপূর্ণ মসজিদগুলোর ওপরে বিশেষ নজর রাখার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সবাইকে নির্দেশ দিয়েছিল। পুরোনো দিল্লির জামা মসজিদ ছিল তার মধ্যে অন্যতম। গোটা এলাকায় জারি করা হয়েছিল ১৪৪ ধারা। মোতায়েন করা হয়েছিল কয়েক শ পুলিশ। বাইরের লোকজন যাতে জামা মসজিদে ঢুকতে না পারেন সে জন্য প্রধান ফটকের কাছে তৈরি হয়েছিল ব্যারিকেড। এত সাবধানতার একটা কারণ জুমার নামাজের পর জনতা যাতে হিংসাত্মক হয়ে না ওঠে। অন্য কারণ ছিল তরুণ দলিত নেতা চন্দ্রশেখর আজাদ ও তাঁর সংগঠন ভীম সেনার বিক্ষোভ দেখানোয় বাধা দেওয়া। কিন্তু দুই দায়িত্ব পালনেই দিল্লি পুলিশ ব্যর্থ হয়েছে।

রাজধানী দিল্লিতে শুক্রবারও জায়গায় জায়গায় বিক্ষোভ প্রদর্শন চলে। জামিয়া মিলিয়ার প্রধান ফটকের সামনে অবিরাম বিক্ষোভ চলছে গত চার দিন ধরে। শুক্রবার সেখানে জমায়েত ছিল কয়েক হাজার। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাই নজর রাখেন যাতে বাইরের কেউ আন্দোলনকে হিংসাত্মক করে না তোলে। বস্তুত, বিভিন্ন সংগঠনের নেতা দুদিন ধরে এই প্রচারই চালাচ্ছেন। তাঁরা বলছেন, এই লড়াইয়ে জিততে গেলে আন্দোলনকে অহিংস রাখতে হবে। কোনো প্ররোচনায় পা দেওয়া চলবে না।