ডিসেম্বর ৩, ২০১৯ - Women Words

Day: ডিসেম্বর ৩, ২০১৯

এক বীরাঙ্গনার ভয়ানক স্মৃতি

এক বীরাঙ্গনার ভয়ানক স্মৃতি

রাজেশ পাল কিছুক্ষণ আগে চট্টগ্রাম মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ডার মোজাফফর আংকেল এর কাছে একটি চমকপ্রদ তথ্য পেলাম। যুদ্ধশেষে একটি পাক ক্যাম্প থেকে উনারা প্রায় ৩০০ জন নির্যাতিতা নারীকে বিবস্ত্র অবস্থায় উদ্ধার করেন। পাকসেনাদের মাত্রাতিরিক্ত লালসার শিকার হয়ে অনেক নারীই পড়নের শাড়ী গলায় দিয়ে আত্মহত্যা করায় পাকসেনারা তাদের কাছ থেকে সব কাপড় কেড়ে নিয়ে বিবস্ত্র অবস্থায় বন্দী করে রেখেছিল। এদের মধ্যে একটি মেয়ে বারবার মুক্তিযোদ্ধাদের পায়ে পড়ে অনুরোধ করছিল তাকে যেন গুলি করে হত্যা করা হয়। উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধা এবং ভারতীয় অফিসাররা এতে বিস্মিত হয়ে পড়েন। এক নার্সকে দেয়া হয় মেয়েটির সুশ্রুষা আর রহস্য উদঘাটনের দায়িত্ব। কেচো খুড়তে বেড়িয়ে আসে সাপ। জামায়াতের কুখ্যাত গুণ্ডা হামিদুল কবির খোকা যুদ্ধের মাঝেই আল শামস বাহিনী গঠন করে সারা চট্টগ্রামে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। মহামায়া ডালিম হোটেলে তার একটি আলাদা নির্যাতন কক্ষ
ছাত্রী উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ : ২ ছাত্রকে কুপিয়ে জখম

ছাত্রী উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ : ২ ছাত্রকে কুপিয়ে জখম

মাদারীপুর সদর উপজেলায় এক ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় দুই ছাত্রকে কুপিয়ে জখম করেছে বখাটেরা। আজ সোমবার দুপুরে উপজেলার ঘটমাঝি ইউনিয়নের উকিলবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, উকিলবাড়ি এলাকার তালেব আকনের ছেলে শফিকুল ইসলাম ও ইয়ার বেপারীর ছেলে আরমান বেপারী। তারা দুজনই ওই এলাকার অ্যাডভোকেট দলিল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র এবং উত্ত্যক্তের শিকার ছাত্রীও একই স্কুলের। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, অ্যাডভোকেট দলিল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষা চলছিল। সোমবার ইংরেজী দ্বিতীয়পত্র পরীক্ষা শেষে দুপুরে বাড়ি ফেরার পথে নবম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করে বখাটেরা। এ সময় ওই ছাত্রীর হাতে জোর করে নিজেদের মোবাইল নম্বর দেওয়া ও ওড়না টেনে নেওয়ার চেষ্টা করে তারা। ঘটনাটি দেখতে পেয়ে ওই স্কুলের কয়েকজন ছাত্র প্রতিবাদ করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রনি শিকদার, সাইফুল শেখ, রানা শিকদার ও মো. আশিক চাকু দিয়ে
‘জ্বলন্ত সিগারেট দিয়ে আমার স্পর্শকাতর জায়গা পুড়িয়ে দিয়েছে ওরা’

‘জ্বলন্ত সিগারেট দিয়ে আমার স্পর্শকাতর জায়গা পুড়িয়ে দিয়েছে ওরা’

স্বচ্ছল জীবনের আশায় বিয়ের সাত মাস পর গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে সৌদি আরব যান মৌলভীবাজারের এক তরুণী (২০)। স্থানীয় এক দালালের দেখানো রঙিন স্বপ্নে বিভোর হয়ে স্বামীকে রেখে এ পথ বেছে নেন তিনি। কিন্তু সে স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে যায় যখন তিনি সৌদিতে পৌঁছান। গত ২৮ এপ্রিল সৌদি আরবের দাম্মাম বিমানবন্দরে নেমেই ওই তরুণী জানতে পারেন তাকে যৌনকর্মী হিসেবে চার লাখ টাকায় বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। এরপর সেখান থেকে মালিকের বাড়িতে যাওয়ার পর পরই শুরু হয় নির্যাতন। প্রতিনিয়ত ধর্ষণ, মারধর আর অনাহারে একপর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এমন ঘটনার এক পর্যায়ে সৌদি পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। গত ২৬ নভেম্বর সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরেন ওই তরুণী। দেশে ফেরার দুদিন পর শ্রীমঙ্গলের ‘মুক্তি মেডিকেয়ার’ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। সেখানেই এমন নির্যাতনের কথা তুলে ধরেন ওই তরুণী। তরুণীর ভাষায় ভয়াবহ নির্যাতনের বর্ণনা মুক্তি মেডিকেয়ারে চিক