অক্টোবর ১, ২০১৯ - Women Words

Day: অক্টোবর ১, ২০১৯

ধর্ষিত বিলকিসকে ৫৯ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ

ধর্ষিত বিলকিসকে ৫৯ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ

২০০২ সালে ভারতের গুজরাট দাঙ্গার সময় দেশটির সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্য বিলকিস বানু গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন। সোমবার দেশটির সুপ্রিম কোর্ট গুজরাট দাঙ্গায় ধর্ষিত এই নারীকে ৫০ লাখ রূপি (বাংলাদেশি ৫৯ লাখ ৭৫ হাজার ৭৫৬ টাকা প্রায়) ক্ষতিপূরণ, সরকারি চাকরি ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করার নির্দেশ দিয়ে রায় ঘোষণা করেছেন। একই সঙ্গে আদালতের এই আদেশ বাস্তবায়নে দুই সপ্তাহের সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়েছে। চলতি বছরের এপ্রিলে দেশটির এই সুপ্রিমকোর্ট একই ধরনের আদেশ জারি করেছিল। কিন্তু গুজরাট সরকার সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে পিটিশন দায়ের করেছিল। সোমবার সেই পিটিশন খারিজ করে দিয়ে বিলকিস বানুকে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে ক্ষতিপূরণের পাশাপাশি চাকরি ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করে দিতে গুজরাট রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দিয়েছেন। গুজরাট সরকার সুপ্রিম কোর্টকে জানায়, রাজ্যে ইতোমধ্যে একটি ক্ষতিপূরণ প্রকল্প চলমান রয়েছে। জবাবে স
কানে হেডফোন, চার্জে মোবাইল, বিস্ফোরণে ঘুমন্ত কিশোরীর মৃত্যু

কানে হেডফোন, চার্জে মোবাইল, বিস্ফোরণে ঘুমন্ত কিশোরীর মৃত্যু

বালিশের পাশে স্মার্টফোন চার্জে রেখে ঘুমিয়েছিলেন এক কিশোরী। গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন থাকা অবস্থায় স্মার্টফোন বিস্ফোরণ ঘটে আগুনে পুড়ে মারা গেছেন ওই কিশোরী। এশিয়ার দেশ কাজাখস্তানের বাসতোবে এলাকায় মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটে। ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল বলছে, আলুয়া আসেতকিজি আবজালবেক (১৪) নামের ওই কিশোরী রাতে বিছানায় শুয়ে স্মার্টফোনে গান শুনছিলেন। একই সঙ্গে মোবাইলটি চার্জে দিয়ে বালিশের পাশে রেখেছিলেন তিনি। পরদিন সকালে তাকে মৃত অবস্তায় উদ্ধার করা হয়। এসময় দেখা যায়, বিছানায় বালিশের পাশে রাখা ফোনের ব্যাটারি বিস্ফোরণে ওই কিশোরীর মাথা পুড়ে গেছে। পুলিশ বলছে, ওই কিশোরীর মোবাইল ফোনের চার্জার বৈদ্যুতিক সকেটে লাগানো ছিল। ধারণা করা হচ্ছে, মোবাইল বিস্ফোরণের কারণে মাথায় গুরুতর জখম হয়েছিল ওই কিশোরীর। যে কারণে সঙ্গে সঙ্গেই মারা গেছে। পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধারের পর চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। সেখানে নেয়ার আগেই আবজালবেকের ম
ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা, শিক্ষক গ্রেপ্তার

ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা, শিক্ষক গ্রেপ্তার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ‘ধর্ষণের শিকার’ ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা। পুলিশ এই ধর্ষণের অভিযোগে সোমবার দুপুরে এক মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তার শিক্ষকের নাম আবুল বাশার (৪০)। তিনি উপজেলার একটি দাখিল মাদ্রাসার গণিতের শিক্ষক। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই শিক্ষার্থী আবুল বাশারের কাছে গণিত বিষয়ে প্রাইভেট পড়তেন। তিন মাস আগে ওই শিক্ষকের বাসায় কেউ ছিল না। এই সুযোগে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন আবুল বাশার। স্থানীয়রা জানায়, আবুল বাশার পাঁচ বছর আগে ওই মাদ্রাসায় যোগদান করেন। তিনি মাদ্রাসার পাশেই একটি বাড়িতে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে বসবাস করেন। ওই শিক্ষার্থীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার ওই শিক্ষার্থীর পেটে প্রচণ্ড ব্যথা হয়। পরে পরিবারের সদস্যরা কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক তার আল্ট্রাসনোগ্রাম করতে বলেন। আজ সোমবার দুপুরে ওই ছাত্রীর আল্ট্রাসনোগ্র