সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯ - Women Words

Day: সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯

বিশ্বের শীর্ষ ৭ নারী সরকারপ্রধান

বিশ্বের শীর্ষ ৭ নারী সরকারপ্রধান

শামস্ বিশ্বাস নারী সরকারপ্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, যুক্তরাজ্যের মার্গারেট থ্যাচার ও শ্রীলংকার চন্দ্রিকা কুমারাতুঙ্গার রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন। সম্প্রতি উইকিলিকসের এক জরিপের তথ্যের ভিত্তিতে ভারতীয় বার্তা সংস্থা ইউনাইটেড নিউজ অব ইন্ডিয়া (ইউএনআই) এ তথ্য জানিয়েছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন- শামস্ বিশ্বাস শেখ হাসিনা বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশের সরকারপ্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন। প্রায় তিন যুগ ধরে তিনি দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তার জীবননাশের জন্য কমপক্ষে ২১ বার হামলা হয়েছে। ২০০৪ সালের গ্রেনেড হামলা থেকে প্রাণে বেঁচে গেলেও তিনি আহত হয়েছেন। কারাবরণ, মিথ্যা মামলায় হয়রানি ও জীবনের ঝুঁকি নিয়েই তিনি দৃঢ়চিত্তে এগিয়ে চলেছেন ছাত্রজীবন থেকেই। মুক্তিযুদ্ধের সময় ৮ মাস বন্দি
বাল্যবিয়েতে বাধা : ইউএনও অফিসে কনের আত্মহত্যার চেষ্টা

বাল্যবিয়েতে বাধা : ইউএনও অফিসে কনের আত্মহত্যার চেষ্টা

আঁখিমণি (২৪) ও আরিফের (১৮) পরিচয় হয় ফেসবুকে। সেখান থেকেই প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয় তাদের। এরপর দু’জনে সিদ্ধান্ত নেন বিয়ের। ছেলের বয়স ২১ বছরের কম হওয়ায় তারা নিজ এলাকা ছেড়ে অন্যত্র কাজী অফিসে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু এলাকাবাসীর সন্দেহ হওয়ায় তাদের আটক করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হয়। এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেয়েটিকে বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেন। বিষয়টি বুঝতে পেরে বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে ভিক্সল পানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে মেয়েটি। রোববার বিকেলে যশোর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অফিসের বাথরুমে ঘটনাটি ঘটেছে। সন্ধ্যায় ওই তরুণীকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার বাড়ি পিরোজপুরের নাজিরপুরে। তার পূর্ণাঙ্গ পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে আরিফের বাড়ি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার জামদিয়া ইউনিয়নের বাররা গ্রামে। এ ঘটনায় বর আরিফুল ইসলাম, তার বাব
বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন

বিয়ের প্রলোভনে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় অপূর্ব সরকার নামে এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল। দণ্ডিত অপূর্ব সরকার টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরের সিংজুড়ির গ্রামের গৌর চন্দ্র সরকারের ছেলে। রবিবার ঢাকার ৭ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. খাদেম উল কায়েশ এ রায় দেন। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৪ মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। রায় ঘোষণার সময় আসামি পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা জারি করে আদালত। মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, অপূর্ব সরকার পরিচয়ের সুবাদে ভিকটিমকে ডেসটিনি গ্রুপের ঢাকার মালিবাগ হোসাফ টাওয়ারের একটি প্রশিক্ষণে ভর্তি করে দেন। প্রশিক্ষণ শেষে আসামি ভিকটিমকে চাকরি করার প্রস্তাব দেন। এ ছাড়া তাকে বিয়ে করারও আশ্বাস দেন। ২০১১ সালের ১১ এপ্রিল ডেসটিনি অফিস থেকে মিটিং শেষে ভিকটিমকে তার বাসায়