সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯ - Women Words

Day: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯

খুলনায় গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ

খুলনায় গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ

খুলনার দাকোপে ১৯ বছর বয়সী এক গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১০টায় অসুস্থ অবস্থায় তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের (খুমেকে) গাইনি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। রাতে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) কোনো লোক না থাকায় গাইনি বিভাগে ভর্তি করা হয়। আজ ৭ সেপ্টেম্বর শনিবার সকালে তাকে ওসিসিতে নেওয়া হবে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়। এর আগে সকালে উপজেলার নলিয়ান এলাকায় এ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। খুমেকে গৃহবধূর সঙ্গে আসা তার শাশুড়ি বলেন, তার ছেলে একটি মামলায় বর্তমানে জেলে রয়েছেন। তিনি ও তার স্বামী ছেলের জামিনের বিষয়ে পরিচিত একজনের সঙ্গে কথা বলতে বাড়ির বাইরে গিয়েছিলেন। এসময় তার পুত্রবধূ একাই বাড়িতে ছিল। প্রতিবেশী ইবাদুল গাজীর দুই ছেলে শরীফুল গাজী (৩০) এবং সাইফুল (২২) ও তাদের এক বন্ধু আবির শিকদার আমার ছেলের জামিনের বিষয়ে কথা বলবে বলে বউয়ের ঘরে প্রবেশ করে। সুযোগ বুঝে তার
‘তোমরাও তখন এক একটা রোহি‌ঙ্গা’

‘তোমরাও তখন এক একটা রোহি‌ঙ্গা’

তসলিমা নাসরিন রোহিংগ্যাদের ভাষা শুনে চেহারা দেখে কাপড় চোপড় দেখে তো মনে হয় তারা যত না বার্মার লোক, তার চেয়ে বেশি বাংলাদেশের লোক। ১১ লক্ষ অশিক্ষিত লোক, তার মধ্যে অনেকেই বর্বর, চোর, ডাকাত, চোরাকারবারি, খুনী, ধর্ষক, ধর্মান্ধ, সন্ত্রাসী। বাংলাদেশে এমন লোকের কি আদৌ অভাব? বাংলাদেশের লোকদের চরিত্র কি রোহিংগ্যাদের চরিত্র থেকে খুব আলাদা?বাংলাদেশে যদি বাস করতে চায় এরা, করুক। মূলস্রোতে মিশে যাক। ১৫ কোটি মানুষের দেশে ১১ লক্ষ এমন কোনও বড় সংখ্যা নয়।। পৃথিবীতে সবারই অধিকার আছে যেখানে খুশি যাওয়ার, যেখানে খুশি বাস করার। জার্মানী যখন ১১ লক্ষ অশিক্ষিত আরব মুসলমানদের আশ্রয় দিয়েছে, বাংলাদেশের লোকেরা খুশিতে হাত্তালি দেয়নি? দিয়েছে। এখন রোহিংগ্যাদের প্রশ্নে জার্মানীর মতো হতে পারছে না কেন? অন্যে উদার হলে ঠিক আছে, নিজের উদার হওয়ার দরকার নেই? রোহিংগ্যাদের তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করছো কেন বাপু। তোমরা যখন ইউরোপ আমেরিকায় গিয়ে
ট্রায়াল রুমের গোপন ক্যামেরায় অর্ধনগ্ন ভিডিও ধারণ

ট্রায়াল রুমের গোপন ক্যামেরায় অর্ধনগ্ন ভিডিও ধারণ

পোশাকের দোকানের ট্রায়াল রুমে গোপন ক্যামেমায় ধারণ করা হয়েছে এক নারী সাংবাদিকের অর্ধনগ্ন ভিডিও। গত ৩১ আগস্ট এ ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের রাজধানী দিল্লির বৃহত্তর কৈলাসে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গোপনে ভিডিও ধারণের ঘটনায় থানায় অভিযোগ করেছেন ওই নারী সাংবাদিক। তিনি অভিযোগ করেছেন, দোকানটির মালিক ট্রায়ালের লাইভ ফুটেজ দেখার পাশাপাশি ভিডিও ধারণও করেছেন। তার এ অভিযোগ আমলে নিয়ে দিল্লি পুলিশ তদন্তে নামলেও এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ওই নারীর অভিযোগ, গত ৩১ আগস্ট তিনি বৃহত্তর কৈলাসের এম ব্লক মার্কেটের একটি অন্তর্বাসের দোকানে যান। তিনি বলেন, ‘কিছু জিনিস পছন্দ করার পর এক নারী কর্মীকে ট্রায়াল রুমে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলি। তার দেখানো ট্রায়াল রুমে গিয়ে আমি সবগুলো পোশাক ট্রায়াল দিয়ে দেখি। মিনিট দশেক পরে ওই নারী কর্মী ভিতরে ঢুকে অন্য রুমে যেতে বলেন। কারণ হিসেবে ওই কর্মী বলেন, এই রুমে