বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে অবদান: ২৯ জনকে সম্মাননা


নিউজটি শেয়ার করুন

নীলফামারীতে বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে অবদান রাখায় ২৯ ব্যক্তিকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। এ উপলক্ষে আজ বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

ইউনিসেফের সহযোগিতায় জেলা প্রশাসন ও বেসরকারী সংস্থা আরডিআরএস আয়োজিত সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন। এতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. শাহীনুর আলম, ইউনিসেফ বাংলাদেশের চীফ অব ফিল্ড সার্ভিসেস সাইরোজ মাওজি, চীফ অব রংপুর-রাজশাহী ফিল্ড অফিসের নাজিবুল্লাহ হামীম, আরডিআরএস বাংলাদেশের পরিচালক হুমায়ন খালেদ প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন বলেন, দেশের উন্নয়ন বঞ্চিত জেলাগুলোর মধ্যে নীলফামারী একটি। নীলফামারীর উন্নয়নের প্রধান বাধা বাল্য বিয়ে। 

তিনি বলেন, দেশের শিক্ষার হার যখন ৭৩ শতাংশ তখন নীলফামারী জেলার শিক্ষার হার ৫৩ শতাংশ। শিক্ষায় পিছিয়ে পড়ার কারণও বাল্য বিয়ে। এখানে শুধু মেয়েদের ক্ষেত্রে নয়, ছেলেদের ক্ষেত্রেও বাল্য বিয়ে হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক আরো বলেন, চেয়ারম্যান, মেয়ররা বয়স বাড়িয়ে সনদ দিচ্ছেন। আর কাজীরা টাকার বিনিময়ে বয়স চুরি করে বিয়ে দিচ্ছেন। টাকার জন্যই তারা এ অবৈধ কাজটি করছেন।

আয়োজকরা জানান, জেলার ডোমার, ডিমলা ও কিশোরগঞ্জ উপজেলার ২৯টি ইউনিয়নে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ২৯ জন ব্যক্তিকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

 

এই বিভাগের আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *