বিজ্ঞানে নারী ও কিশোরীদের অগ্রাধিকার দেওয়ার আহ্বান বাংলাদেশের


নিউজটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞান শিক্ষার ক্ষেত্রে নারী ও কিশোরীদের জন্য আরো সুযোগ সৃষ্টির আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কিভাবে নারীর ক্ষমতায়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে, জাতিসংঘে দেওয়া এক বক্তৃতায় তা-ও তুলে ধরেন রাষ্ট্রদূত।

সোমবার জাতিসংঘ এবং এর সদস্যরাষ্ট্রসমূহ, এনজিও ও সিভিল সোসাইটি যৌথভাবে ‘নারী ও কিশোরীদের বিজ্ঞান’ বিষয়ক চতুর্থ আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। 

‘সামগ্রিক সবুজ প্রবৃদ্ধিতে নারী ও বালিকাদের জন্য বিনিয়োগের মূল্যায়ন’ বিষয়ক এই আন্তর্জাতিক দিবসের প্রথম প্যানেল আলোচনায় উদ্বোধনী বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, বাংলাদেশে কিশোরীদের উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তির ক্ষেত্রে সাফল্য বেড়েছে। গত একদশক ধরে নারীরা ধারাবাহিকভাবে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে যেভাবে অগ্রসর হয়েছে তা উল্লেখ করেন তিনি। স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, কলেজ পর্যায়ে মেয়েরা প্রায় সমপর্যায়ে উঠে এসেছে এবং চিকিৎসা ও জীবনসম্বন্ধীয় বিজ্ঞানে তারা ছেলেদের থেকেও ভালো করছে।

তবে এখনও গবেষণার ক্ষেত্রে লিঙ্গবৈষম্য রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই অসমতা কাটিয়ে উঠতে বাংলাদেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনীতি হালনাগাদ করা হয়েছে। 

২০১৫ সালের ২২ ডিসেম্বর সর্বসম্মতিক্রমে নেওয়া রেজ্যুলেশন অনুযায়ী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ প্রতিবছর ১১ ফেব্রুয়ারিকে নারী ও কিশোরীদের বিজ্ঞানবিষয়ক আন্তর্জাতিক দিবস পালন করে আসছে। এ বছর বাংলাদেশ, শ্লোভাক রিপাবলিক, হাঙ্গেরি ও পোল্যান্ড যৌথভাবে এই আন্তর্জাতিক দিবসটি পালন করছে। জাতিসংঘে নিযুক্ত সাইপ্রাস, গুয়েতেমালা, হাইতি, কেনিয়া, পোল্যান্ড, সানম্যারিনো, সেইন্ট ভিনসেন্ট, ফিলিপাইন, টোঙ্গা, ভিয়েতনাম, উরুগুয়ে এবং জাম্বিয়া মিশনসমূহ এর সহ-আয়োজক। মাল্টার ‘ইউরোপ ও সমতা বিষয়ক’ মন্ত্রী ড. হেলেনা ড্যাল্লি অনুষ্ঠানটিতে অংশগ্রহণ করেন।

দুই দিনব্যাপী এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনে জাতিসংঘ মহাসচিব ও সাধারণ পরিষদের সভাপতি ভিডিও বার্তা দিয়েছেন। মঙ্গলবার এ সম্মেলনের শেষ দিন।

সূত্র: কালের কন্ঠ

এই বিভাগের আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *