মর্ত্যলোক ছেড়ে দেবী দুর্গা ফিরে যাচ্ছেন কৈলাসে - Women Words

মর্ত্যলোক ছেড়ে দেবী দুর্গা ফিরে যাচ্ছেন কৈলাসে

মর্ত্যলোক ছেড়ে দেবী দুর্গা ফিরে যাচ্ছেন কৈলাসে দেবালয়ে। বাবার বাড়ি বেড়ানো শেষে ফেরার সময় হল আনন্দময়ীর। এবারের দুর্গা পূজার শাস্ত্রীয় সমাপ্তি ঘটল মঙ্গলবার সকালে বিজয়া দশমীতে বিহিত পূজা আর দর্পণ বিসর্জনের মধ্য দিয়ে।

বিকেলে প্রতিমা বিসর্জনে শেষ হবে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় এ ধর্মীয় উৎসবের। ভক্তদের চোখে তাই জল, হৃদয় ভাড়ি হয়ে ওঠে, মা যে চলে যাচ্ছেন এক বছরের জন্য।

বিসর্জনের আগে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের মণ্ডপে মণ্ডপে দুপুর পর্যন্ত চলে সিঁদুর আর আবীর খেলা। ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে শোভাযাত্রা করে প্রতিমা নিয়ে আসা শুরু হয় ঢাকেশ্বরী মন্দিরে। বিকাল ৪টায় সেখান থেকেই বিজয় শোভাযাত্রা নিয়ে ওয়াইজঘাটে প্রতিমা বিসর্জন করা হবে।

মঙ্গলবার সকাল ৭টা ৩১ মিনিটে দশমী বিহিত পূজা অনুষ্ঠিত হয়। ষোড়শপ্রচার পূজার পাশাপাশি দেবী প্রতিমার হাতে জরা, পান, শাপলা ডালা দিয়ে আরাধনা করা হয়।

সবশেষে দর্পণ বিসর্জনের সময় প্রতিমার সামনে একটি আয়না রাখা হয়। তাতে দেবীকে দেখে তার কাছ থেকে সাময়িক সময়ের জন্য বিদায় নেন ভক্তরা।

হিন্দু শাস্ত্র অনুযায়ী, মহালয়ার দিন ধরায় আসেন দুর্গা; বিসর্জনের মধ্য দিয়ে তাকে এক বছরের জন্য বিদায় জানানো হয়। আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ঠী থেকে দশমী তিথি পর্যন্ত পাঁচ দিন চলে দুর্গোৎসব।

পঞ্জিকা অনুযায়ী দেবী দুর্গা এবার ঘোড়ায় চড়ে এসেছেন, যাবেনও ঘোড়ায় চড়ে। সনাতন বিশ্বাস অনুযায়ী, দেবীর এমন গমন-আগমনে সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংসারিক ক্ষেত্রে অস্থিরতার ইংগিত দেয়। রাজনৈতিক উত্থান-পতন, সামাজিক স্তরে বিশৃঙ্খলা, অরাজকতা, গৃহযুদ্ধ, দুর্ঘটনা, অপমৃত্যু বাড়ে।

বিকালে বা সন্ধ্যায় প্রতিমা বিসর্জন শেষে মন্দিরে মন্দিরে ‘শান্তির জল’ নিয়ে আসা হবে। এরপর সন্ধ্যায় মণ্ডপে হবে আশির্বাদ প্রদান।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর সারাদেশে ২৯ হাজার ৩৯৫টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে।  রাজধানীতেই ২২৯টি মণ্ডপে পূজা হয়েছে।