ফরিদপুরে ঘূর্ণিঝড়ে পাটকলের চাল ভেঙে নিহত ৪ - Women Words

ফরিদপুরে ঘূর্ণিঝড়ে পাটকলের চাল ভেঙে নিহত ৪

ফরিদপুরে ঘূর্ণিঝড়ে একটি পাটকলের চাল ভেঙে কমপক্ষে চারজন শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন প্রায় ৬০জন শ্রমিক। রোববার দুপুর ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, বীরেন শিকদার, মালতী মণ্ডল (৪০), হজরত আলী (৫৫) ও অজ্ঞাত এক কিশোর। আহতরা ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, ফরিদপুর সদর উপজেলার বাখুন্ডা এলাকায় দুপুর একটার দিকে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে। প্রায় ১০ একর জমির ওপরে  জুবাইদা করিম জুট মিলটি অবস্থিত। ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে এর ৫০ ভাগ টিনের চাল উড়ে গিয়ে শ্রমিকদের ওপরে পড়ে। এ সময় টিনের আঘাতে ঘটনাস্থলেই তিন শ্রমিকের মৃত্যু হয়। আর হাসপাতালে নেওয়ার পর ১ জন মারা যায়। এ সময় পাটকলের আশেপাশের এলাকাগুলোতেও অনেক বাড়িঘর ও প্রচুর গাছপালা বিধ্বস্ত হয়।

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বিপুল চন্দ্র দে জানান, ঘটনার সময় প্রায় ৩০০ শ্রমিক পাটকলে কাজ করছিলেন। অ্যাসবেস্টরের তৈরি চালের কয়েকটি অংশ ঝড়ে  ভেঙে পড়ে। ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ আহত শ্রমিকদের উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

পাটকলের শ্রমিক মো. রেজাউল বলেন, ‘চারদিক অন্ধকার হয়ে জোরে ঝড়বৃষ্টি হচ্ছিল। কয়েক মুহূর্তের মধ্যে চাল ভেঙে পড়ল। আমরা যে যেখানে পারি ছুটে গিয়ে আশ্রয় নিলাম।’

পাটকলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মতিউর রহমান বলেন, চাল ভেঙে পাটকলের অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এক মাসের মধ্যে পাটকল চালু করা যাবে না।

ঘটনার পরপরই ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, র‌্যাবের একধিক দল ঘটনাস্থলে রয়েছে এবং উদ্ধার তৎপরতায় অংশ নিচ্ছে।

জেলা প্রশাসক সরদার শরাফত আলী বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ‘টর্নেডোটি জেলার কিছু অংশে আঘাত হানে। তবে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জুবাইদা করিম জুট মিলটি। সেখানে টর্নেডোর আঘাতে টিনশেড বিধ্বস্ত হয়ে ৪ জন শ্রমিক মারা যাওয়ার খবর জেনছি। এরই মধ্যে আহতদের সার্বিক চিকিৎসা সহায়তা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সূত্র: বাংলাট্রিবিউন, প্রথম আলো