রিও অলিম্পিক শুরু - Women Words

রিও অলিম্পিক শুরু

জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হল রিও অলিম্পিক। বাংলাদেশ সময় আজ ভোর ৫ টায় শুরু হয় উদ্বোধনী আয়োজন।

উদ্বোধনী আয়োজন দেখতে ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোর মারকানা স্টেডিয়ামে উপস্থিত ছিলেন ৬০ হাজার দর্শক। বিশ্ব জুড়ে ৩ বিলিয়ন দর্শক সরাসরি তা উপভোগ করেন টেলিভিশনে। প্রতিযোগীরা নিজ নিজ দেশের পতাকা হাতে স্টেডিয়াম প্রদক্ষিণ করেন।

বিশ্বের দুইশ’র বেশি দেশের ক্রীড়াবিদদের অংশগ্রহণে অলিম্পিকের উদ্বোধনী আসরে তুলে ধরা হয় ব্রাজিলের বৈচিত্র্যপূর্ণ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, ইতিহাস ও ভিন্নতাকে। এই অলিম্পিকে প্রথমবারের মতন শরণার্থীদের একটি দল প্যারেডে অংশগ্রহণ করে।

‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’খ্যাত অলিম্পিক আসরের মার্চপাস্টের একেবারে শুরুতেই স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেন বাংলাদেশের তারকা গলফার সিদ্দিকুর রহমান। দেশের খেলাধূলার ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সরাসরি অলিম্পিকে অংশগ্রহনের যোগ্যতা অর্জন করেছেন তিনি। বাংলাদেশের নয় সদস্যের ছোট্ট দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন সিদ্দিকুর রহমান। দলের অন্য সদস্যরা হলেন সাঁতারু মাহফিজুর রহমান, দেশের দ্রুততম মানবী শিরিন আক্তার, সাঁতারু সোনিয়া আক্তার, দ্রুততম মানব মেজবাহ আহমেদ, শ্যুটার আবদুল্লাহ হেল বাকি প্রমুখ।

কাউন্টডাউন শেষে ছিল বর্ণিল আতশবাজির প্রদর্শনী। শিল্পী পালিনহো ডি ভিয়োলা গাইলেন ব্রাজিলের জাতীয় সংগীত। লেজার শো এর মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হল অ্যামাজন জঙ্গল, ব্রাজিলের বিভিন্ন সমুদ্রসৈকতের মনো মুগ্ধকর দৃশ্য। ছবির মাধ্যমে দর্শকদের দেখানো হলো ব্রাজিলের ক্রমবিবর্তনের ইতিহাস।

ম্যারাথন দৌড়বিদ ভানদেরলেই দি লিমা মূল মশালটা প্রজ্বলিত করেন। ‘গার্ল ফ্রম ইপানেমা’ গানটির সঙ্গে র‍্যাম্পে অংশ নেন সুপার মডেল জিসেল বুন্দচেন।

অলিম্পিকের আয়োজক হতে পেরে ব্রাজিল গর্বিত ও আনন্দিত। কিন্তু দেশটির একটি বড় অংশ এই আয়োজনের বিরোধিতা করে আসছেন।

তারা বলছেন, এই আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনের জন্য যে বিপুল পরিমান অর্থ খরচ হল, তা দেশটির দরিদ্র জনগণের জীবনমান উন্নয়নের কাজে লাগানো যেত।

আয়োজকরা আশা করেছিলেন, ব্রাজিলের ১০০টি রাজ্য থেকে প্রধানরা আসবেন। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে ২৫টি রাজ্য থেকে প্রতিনিধিরা এসেছেন।

সূত্রঃ বিবিসি, প্রথম আলো