চট্টগ্রামের পুলিশ সুপারের স্ত্রীকে গুলি করে হত্যা - Women Words

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপারের স্ত্রীকে গুলি করে হত্যা

পুলিশ সুপার হিসেবে সদ্য পদোন্নতি পাওয়া বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তারকে মাথায় গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বাবুল আক্তার চট্টগ্রামের বিভিন্ন সময়ে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে সফল নেতৃত্ব দিয়েছেন।

আজ রোববার (০৬ জুন) সকাল পৌনে ৭টার দিকে তার দুই সন্তানকে স্কুলে নিয়ে যাওয়ার সময় ও আর নিজাম রোডে তার বাসার সামনে থেকে মাথায় গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

পাঁচলাইশ থানার ওসি মহিউদ্দিন মাহমুদ ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, জিইসি মোড়ের কাছে ও আর নিজাম রোডে মোটরসাইকেল আরোহী হামলাকারীরা মাহমুদার মাথায় গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তবে কে বা কারা এই হামলা চালিয়েছে তা এখনো জানা যায়নি।

গত এপ্রিলের শুরুতে পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া বাবুল আক্তার কাজ করছেন ঢাকার পুলিশ সদরদপ্তরে। স্ত্রী খুন হওয়ার খবর পেয়েই তিনি রওনা হন চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে।

পদোন্নতির আগে বাবুল আক্তার গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (এডিসি) হিসেবে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উত্তর-দক্ষিণ জোনের দায়িত্বে ছিলেন।

নগর পুলিশের উপ কমিশনার (উত্তর) পরিতোষ ঘোষ প্রতক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে  জানান, মোটরসাইকেলে আসা হামলাকারীরা সংখ্যায় ছিল তিনজন। তারা প্রথমে আক্তারকে ছুড়িকাঘাত করে পরে পরপর তিন রাউন্ড গুলি করে। ঘটনাস্থল থেকে তিনটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।

মা হত্যার প্রত্যক্ষদর্শী ছয় বছর বয়সী ছেলেটি বলছে, মোটরসাইকেলে যারা এসেছিল, তারা প্রথমে তাকে একপাশে সরিয়ে নিয়ে যায়। এরপর একজন তার মায়ের পেটে ছুরি মারে এবং পরে গুলি করে।

এদিকে ঘটনার পর পর সিআইডি, ডিবি, সিবিআই ও পুলিশ বিষয়টি তদন্তে মাঠে নেমেছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সিএমপি কমিশনার ইকবাল বাহার। এসময় তিনি  হত্যাকাণ্ডের সাথে জেএমবি জড়িত কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান।

উল্লেখ্য, এসপি বাবুল আক্তার গত বৃহস্পতিবার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল সিএমপি ছেড়ে পুলিশ সদর দপ্তরে যোগদানের জন্য বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। তিনি চট্টগ্রামে জেএমবির সামরিক প্রধান জাবেদসহ বেশ কয়েকজন জঙ্গিকে গ্রেপ্তারের পাশাপাশি দেশে নতুন করে জঙ্গিবাদের উত্থানটি আবিষ্কার করেছিলেন।