শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন

দিরাইয়ে মুন্নী হত্যা: অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল

দিরাইয়ে মুন্নী হত্যা: অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার স্কুলছাত্রী হুমায়রা আক্তার মুন্নী হত্যা মামলার অভিযোগপত্র আদালতে পেশ করেছে পুলিশ। জেলার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মোহাম্মদ শহীদুল আমিনের আদালতে অভিযোগপত্রটি দাখিল করা হয়।

গতকাল সোমবার বিকেলে ৯০ পৃষ্ঠার এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও দিরাই থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সেকান্দর আলী।

এ বিষয়ে এসআই সেকান্দর বলেন, ‘দিরাইয়ের মুন্নী হত্যা মামলাটি একটি আলোচিত মামলা। পুলিশ মামলাটি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। তাই মামলা দায়েরের ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে অভিযোগপত্র জমা দেওয়া হয়েছে। এতে শুধু ইয়াহিয়াকে আসামি করা হয়েছে এবং ২১ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।’

‘একমাত্র আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের লক্ষ্যে নিখুঁতভাবে চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। মামলার অভিযোগপত্র তৈরিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. হাবিবুল্লাহ, দিরাই থানার ওসি ও সার্কেল এসপি সর্বাত্মক সহযোগিতা করছেন।’

এ ঘটনার তদন্ত তদারককারী কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. হাবিবুল্লাহ বলেন, ‘মুন্নী হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি আমরা অতি গুরুত্ব সহকারে নিয়েছিলাম।  সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারসহ পুলিশের সংশ্লিষ্ট প্রতিটি সংস্থার কার্যকরী উদ্যোগের ফলে আসামিকে দ্রুততম সময়ে ধরে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে পেরেছি।’

‘আমরা মামলার পারিপার্শ্বিক অবস্থা ও ফিজিক্যাল অ্যাভিডেন্স যাচাইসহ আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির পরিপ্রেক্ষিতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে আদালতে চার্জশিট দিতে পেরেছি।’

আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করার খবরের প্রতিক্রিয়ায় মুন্নীর মা রাহেলা বলেন, ‘আমার মেয়ের হত্যাকারীর বিচার দ্রুত সম্পন্ন করা ও তার যথাযথ শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানাই।’

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর রাতে দিরাই পৌর এলাকার মাদানী মহল্লার নিজ বাসভবনে হুমায়রা আক্তার মুন্নীকে নির্মমভাবে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়। ‍মুন্নী দিরাই উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

এ ঘটনায় মুন্নীর মা রাহেলা বেগম বাদী হয়ে দিরাই থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে প্রধান আসামি ইয়াহিয়াকে ধরতে পুলিশ অভিযানে নামে। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে ঘটনার পাঁচদিনের মাথায় সিলেট থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তারের পর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেয় ইয়াহিয়া। মামলার ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

সূত্র: প্রিয়.কম

নিউজটি শেয়ার করুন







© All rights reserved © 2015 womenwords.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ