চোখ-হাত-পা বেঁধে কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজধানীর ভাটারায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে এক কিশোরী। ওই কিশোরীর বয়স ১২ বছর বলে জানা গেছে।

আজ শনিবার ওই কিশোরীর বড় বোন বাদী হয়ে ভাটারা থানায় এ বিষয়ে একটি মামলা করেছেন। মামলায় অজ্ঞাত চারজনকে আসামি করা হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার রাতে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

কিশোরীটির পরিবার অভিযোগ করেছে ওই কিশোরীকে রাতভর গণধর্ষণ করা হয়েছে।

ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুক্তারুজ্জামান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের সঙ্গে রাজধানীর ভাটারা থানা এলাকাতেই থাকে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী। তার বড় বোন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাতভর তাকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি। শুক্রবার ভোর পাঁচটার দিকে ভাটারার একটি রাস্তায় তাকে পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন খবর দেয়। পরে আমরা গিয়ে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করি। প্রথমে লজ্জা ও ভয়ের কারণে বিষয়টি কাউকে জানাতে চাইনি। পরে পরিবারের সম্মতিক্রমে শুক্রবার রাতে তাকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে যাই। একটি ছেলে বাসার সামনে থেকে আমার বোনকে ফুসলিয়ে নিয়ে যায়। পরে তার চোখ-হাত-পা বেঁধে চারজন মিলে ধর্ষণ করে।

সূত্র: কালের কন্ঠ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *