শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন

‘গুড বাই রিপন’

‘গুড বাই রিপন’

সেরিব্রাল ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন একাত্তর টেলিভিশনের চিত্রগ্রাহক আলী হোসেন রিপন। বুধবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিইউতে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। বান্দরবানের থানচির বড়মোদকে খাদ্য সংকট নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন করতে গিয়ে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হন রিপন। তাঁকে নিয়ে এখন ফেসবুক জুড়ে সহযোদ্ধাদের হাহাকার। আমরা আর এরকম মৃত্যু চাইনা। সাংবাদিকতা পেশাটা ঝুঁকি পূর্ণ, তাই আমাদের মধ্যে তৈরি হোক সচেতনতা। কর্মক্ষেত্রে আমরা যেন হই একে অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল ও মানবিক।

বাংলাভিশন এর বার্তা সম্পাদক শারমিন রিনভি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, আহারে মাত্র ৩০ বছর বয়সে ৭১ টিভির ক্যামেরাম্যান রিপন ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। স্পেশাল রিপোর্ট করতে বান্দরবানের থানচিতে গিয়ে আক্রান্ত হন তিনি। আমি তাকে চিনি না, কোনদিন দেখা বা কথাও হয়নি, তারপরও আমার মন খারাপ লাগছে। ভাবছি কতো অসচেতন আমরা, কত ঝুঁকি নিয়ে কাজ করি আমরা, কাজের নেশায় নিজের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলতেও দ্বিধা করি না আমরা। একবারও ভাবি না আমার জীবনটা অমূল্য, কোনকিছুর বিনিময়েই তা ফিরে পাওয়া যাবেনা…

একাত্তর টিভির সাংবাদিক ফারজানা রূপার স্ট্যাটাস, Finally i had to declare the news on air…!! Now i know what is most sad part for a journalist!!! Good bye Ripon ….!!! ( শেষ পর্যন্ত আমাকেই এই সংবাদ টা ঘোষণা করতে হল। আমি এখন জানি, একজন সাংবাদিকের জন্য সবচেয়ে বিষাদময় অংশ কোনটি। শুভ বিদায় রিপন)।

এটিএন নিউজের সহকারী বার্তা প্রধান প্রভাষ আমিন লিখেছেন, আহারে একটু আগে বাসায় ফিরে মোবাইলে ফেসবুকে ঢুকতেই Farzana Rupa স্ট্যাটাস দেখে বড় একটা ধাক্কা খেলাম। স্তব্ধ হয়ে খাবার টেবিলে বসেছিলাম। মুক্তি জিজ্ঞেস করলো, : শরীর খারাপ? : না। : টায়ার্ড? : না। : মন খারাপ? : না। : তাহলে কী হইছে, ভেন্দা মাইরা বইসা আছো কেন? আমি বললাম, আসলে মনটা একটু খারাপ। একাত্তর টিভির একটা ক্যামেরাম্যান মারা গেছে ম্যালেরিয়া জ্বরে। মুক্তি জানতে চাইলো, আমি চিনতাম কিনা। তাই তো আমি তো রিপনকে চিনতামও না, তবে মনটা এত খারাপ কেন, কেন আমি তব্দা মেরে বসে আছি। আসলে রিপনের মৃত্যুটা আমার বিশ্বাস হচ্ছে না। দুপুর থেকেই রূপার স্ট্যাটাসে আপডেট পাচ্ছিলাম, ম্যালেরিয়া জ্বরে আক্রান্ত হয়ে রিপন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। রূপা একবার নোট দিল, রিপনের অবস্থা একটু ভালো। আমি ভাবতেই পারিনি, এই সময়ে ম্যালেরিয়া জ্বরে একজন সচেতন সাংবাদিক মারা যেতে পারে, এটা আমার মাথাতেই আসেনি। ছবিটা দেখে মনটা আরো খারাপ হয়ে গেল, মাত্র ৩০ বছর বয়সে এমন প্রাণবন্ত একটা ছেলে মরে যেতে পারে! রিপন মরে গিয়ে অনেকগুলো আফসোস, অনেকগুলো প্রশ্ন, অনেকগুলো বিষয় আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়ে গেল। ফেসবুকেই দেখছি, ম্যালেরিয়ার টিকা আছে, ইনজেকশন আছে, ট্যাবলেট আছে, মলম আছে। থানচির মত দুর্গম এলাকায় যাওয়ার আগে রিপন এর কোনোটাই করেনি কেন? পাহাড় থেকে ফিরে জ্বরে পড়ে সেটা সিরিয়াসলি নিলো না কেন? আরো আগে হাসপাতালে গেল না কেন? সাংবাদিকতা পেশাটাই ঝুঁকির। কিন্তু সেই ঝুঁকি যখন কমিয়ে আনার সুযোগ থাকলে, আমরা সেটা নেবো না কেন? জীবন দিয়ে দাম চুকাতে হয়, ততটা ঝুঁকি কখনোই নেয়া যাবে না। কারণ জীবন অমূল্য, জীবন একটাই; কোনো দাম দিয়েই জীবন কেনা যায় না। আহারে জীবন শুরু করার আগেই বেচারা ছবি তুলতে তুলতে নিজেই ছবি হয়ে গেল।

ডেইলি স্টার এর সাংবাদিক বুলবুল আহমেদ রিপনের মৃত্যু নিয়ে লিখে ফেলেছেন একটি কবিতা। কবিতার নাম ‘পাহাড়! কিসের বদলা নিলে?’
পাহাড় তুমি কত ভাল,
কত্ত তোমার নাম।
সেই তুমি আজ কেড়ে নিলে,
আমার ভাইয়ের প্রাণ!
অসুস্থরাও সুস্থ হয়ে যায়
তোমার কাছে গেলে।
কি অপরাধে বল তুমি
মোর ভাইয়ের জীবন নিলে!
অনেক ভালবাসতো তোমায়
যেত ছুটে তোমার কাছে।
তুমি নাকি আয়ু বাড়াও,
কেড়ে নিলে আয়ু পাছে!
পাহাড় তুমি বল শুনি
কিসের বদলা নিলে?
ভালবাসা কি বোঝ না তুমি
নাকি, বেশি ভালবেসে ছিলে!
বুকের ভিতর শুধু হাহাকার,
কেমনে ভুলি বলো!
পাহাড়-সমান ভাইটা আমার
আজ নীথর পাহাড় হয়ে গেল!

দৈনিক ইত্তেফাকের ফিচার রিপোর্টার মোহাম্মদ অমর ফারুক লিখেছেন, এই যুগের একজন সচেতন সাংবাদিক সেরিব্রাল ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাবে কল্পনাতেও ছিলো না। কিভাবে সম্ভব? বান্দরবানের থানচি, বড়মোদকে খাদ্য সংকট নিয়ে ধারাবাহিক রিপোর্ট করতে গিয়ে একাত্তর টেলিভিশনের চিত্রগ্রাহক আলী হোসেন রিপন ভাইয়ের ক্ষেত্রে সেটাই হলো। রিপন ভাইয়ের সাথে আমার কখনোই পরিচয় ছিলো না,কখনো কথা হয়নি তারপরও যখন Farzana Rupa আপার ফেসবুক স্ট্যাটাসে তার মৃত্যু সংবাদটি দেখলাম তখন মনটা খারাপ হয়ে গেলো। ত্রিশ বছরের একটি যুবক এই যুগে এসে এই ভাবে অপচয় হয়ে গেল?
সাথে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে আছেন আমার দেখা দেশের সেরা পরিবেশ সাংবাদিক Hossain Sohel ভাই ।সোহেল ভাই খানিকটা সুস্থ।

বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা মাহমুদুল হক মনির স্ট্যাটাস,বান্দরবানে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে মশার কামড়ে ম্যালেরিয়ায় একজন সংবাদকর্মী মারা গেছেন। আমি তাঁকে চিনি না কিন্তু কেন জানি খুব খারাপ লাগছে। পেশার জন্য মানুষ না চাইলেও অনেক রিস্ক নিতে হয়। নিজের জীবনের রিস্কও নিতে হয়। যারা বান্দরবান বেড়াতে যাবেন তাঁরা সতর্ক থাকবেন। সাবধানের মাইর নাই। আমারও একবার ম্যালেরিয়া হয়েছিল, বেঁচে গেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন







© All rights reserved © 2015 womenwords.com
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ