রূপার জন্য বেদনাহত

রোমেনা লেইস রূপার ঘটনাটা জানার পর থেকেই তাঁর জন্য অনেক কষ্ট পাচ্ছি। রূপা আসলে আমার সন্তানের মতো।প্রতিদিন এই যে সকালে ছেলে মেয়েরা সবাই বের হয়ে যায়, ভালভাবে ফিরে আসুক- কায়মনোবাক্যে এই থাকে আমার প্রার্থনা । রূপার মতো স্বপ্ন নিয়ে একদিন আমরাও বাড়ি ছেড়ে ঢাকায় গিয়েছিলাম।বাসে ট্রেনে ফেরীতে কতো রকমের লোকজন থাকে। একবার সুনামগঞ্জ

‘সালোয়ারের উপর গেঞ্জি পরা নিষেধ!’ 

শাকিলা রূম্পা  কী? শিরোনাম দেখে চমকে গেলেন তো? আমিও প্রথমে চমকে গিয়েছিলাম এরকম সংবাদ শিরোনাম দেখে। এমন আদেশ জারি করে নোটিশ টানানো হয়েছে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সুফিয়া কামাল হলে। এ বিষয়ে কিছু প্রশ্ন আমার মাথায় খেলা করছে। আচ্ছা আমি বাসায় কিংবা হলে কি পোশাক পরব সেটা কেন অন্য কেউ

মানবিক মানুষ

রোমেনা লেইস বুকের ভেতরে ভীষণ এক শঙ্কা নিয়ে ঘুম ভাঙলো। ভয় পাচ্ছি না মুখে বললেও ভয় পাচ্ছি। হুমায়ূন আহমেদের নাটকের দৃশ্য মনে পড়ছে। চোখ অপারেশনের পর চোখের বাঁধন খোলা হচ্ছে। ডাক্তার বললেন ধীরে ধীরে চোখ খুলতে, মেয়েটি ধীরে ধীরে চোখ খুললো। চিৎকার করে বলছে -মা আমি কিছু দেখতে পাচ্ছি না। নাহ।এটি

সমকামীদের উপর চাপ প্রয়োগ, শাস্তি বা ঘৃণা কেন?

আসমা অধরা সমকামিতা নিয়ে যে গলা ফাটাচ্ছেন, কথার তুবড়ি ছুটিয়ে মুখে ফেনা তুলে দিচ্ছেন, তাদের জন্য বলি। আপনারা এই যে এতো পাপ পাপ বলেন, ধর্ষণ তাহলে সেইরকম পূণ্যই হবে। না হলে বলবেন কেন? এইটাও কি একটা ইস্যু নয়, এই বর্তমান ধর্ষণ ইস্যু ধামাচাপা দেয়ার জন্য? প্রতিবার তাই হয়। ইস্যু দিয়ে ইস্যু

সম্ভ্রম, সম্মান শব্দগুলোর বিশেষত্ব মেয়েদের শরীরের ওপর নির্ভর করেনা

প্রীতি ওয়ারেছা 'ভিডিও ছেড়ে দেবো'- এই বাক্যের দৈনতা মেয়েরা যতদিন না অতিক্রম করতে পারবে ততদিন হাজার হাজার ধর্ষণ অপরাধের খবর লোকচক্ষুর অন্তরালে থেকে যাবে। ধর্ষণ ভয়ংকর একটা অপরাধ। এখানে ধর্ষিতা মেয়ে কোনভাবেই অপরাধী নয়। মেয়েদের শরীর সম্ভ্রম রক্ষার বস্তু নয় যে ভিডিওতে শরীর দেখা গেলেই সম্ভ্রমহানি ঘটবে! চারদিকে গেল গেল রব

ছোটবেলার নাচের দিদিটা!

ফাহমিদা ফাম্মী ছোট বেলা থেকেই সাজুনি বুড়ি ছিলাম খুব। মুখে ক্রিম পাউডার মেখে, চুরি আলতা মালায় বউ সাজতাম মাঝে মাঝেই... টিভিতে নাচের অনুষ্ঠানে দেখতাম মেয়েরা অনেক সাজুগুজু করে নাচ করতো। কানে দুল অথবা বাউটি পায়ে রুমঝুম করা নুপুরে বেশ লাগতো। তখন একদিন পাশের বাসার একটা মেয়ে বয়সে আমার ছোট, নাচ শিখতে

জীবন যখন যেমন

রোমেনা লেইস অভিজ্ঞতাটা শেয়ার না করে পারছি না। আমি আর আমার হাজবেন্ড রিলাক্স মুডে জ্যাকসন হাইটস্ এর প্রিমিয়ামে খেতে এসেছি।সাতটা পার হয়ে গেছে।দুই চক্কর দেয়ার পর জুৎসই একটা পার্কিং পাওয়া গেল। Fire hydrant থেকে আট ফিট দূরে ।বার কয়েক চেক করে সব ঠিকঠাক দেখে আমরা সুন্দর একটা টেবিল বেছে নিয়ে বসে

কর্ম যখন প্রবল আকার

শবনম সুরিতা ডানা এক. সাদা কাগজের দিকে ঠায় তাকিয়ে আছি। তাকিয়ে থাকতে আজকাল আর সাহস লাগে না। চোখ ফেরাতে তাও ধক লাগে অনেক। এখন মানুষের মুখের থেকে চোখ ফেরানো কঠিন। তুলনায় অমানুষদের সাথে বাক্যালাপ বরং অনেক সহজ। ঠিক যেভাবে প্রসাদকাকুর থেকে চোখ ফিরিয়ে নিতে পেরেছি আমি। বুঝেছি, ওখানে একটা মানুষ ছিল একটু

নান্দিক নাট্যদলের পরিবেশনায় ‘হাসন রাজা’

হাসন রাজা-এই নামটি এখন দেশে বিদেশে আলোচিত এক নাম। গতকাল শনিবার নান্দিক নাট্যদল, সিলেট তাদের ২৩তম প্রযোজনা ‘হাসন রাজা’ পরিবেশন করল। নগরীর রিকাবিবাজারস্থ কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে মঞ্চস্থ হল নাটকটি। মিলনায়তন ভর্তি মানুষ মুগ্ধ হয়ে উপভোগ করল হাসন রাজার বর্ণিল জীবনের কাহিনী, যা দেখে আমার হাসন রাজা সম্পর্কে জানার আগ্রহ আরো

বাবার মত হয় না আর কেউ

রোমেনা লেইস আমরা বাড়ি ফিরবো যেদিন তার আগে থেকেই আমার আব্বা নিজের পছন্দের মাছ-মাংস সব বাজার করে, রান্না করিয়ে, আমাদের অপেক্ষায় থাকতেন। বাড়ি ফিরলে গেটের কাছেই আব্বা বুকে টেনে নিয়ে বলতেন, বেশী কষ্ট হয়েছে কি? খিদে পেয়েছে? রাস্তায় কী খেয়েছ? আজ আব্বা নেই। এখন কেউ আর অপেক্ষায়ও থাকে না।। আমার আব্বা ডাক্তার আবুল