You are here
নীড়পাতা > প্রতিবেদন > যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে শিকলে বেঁধে নির্যাতন

যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে শিকলে বেঁধে নির্যাতন

যৌতুক নিরোধে যতই কঠোর আইন করা হোক, মানুষ কে যতই সতর্ক করা হোক, কিন্তু বন্ধ হয়নি যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন। এবার মাত্র ৫০ হাজার টাকা যৌতুকের দাবিতে শিকল দিয়ে বেঁধে এক গৃহবধূকে নির্যাতন করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বরগুনা সদর উপজেলার পাজরাভাঙ্গা গ্রামের খলিফাবাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনাস্থল থেকে ওই গৃহবধূ রোকেয়া বেগমকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোকেয়া বেগম সদর ইউনিয়নের পাজরাভাঙ্গা গ্রামের মো. মোশারেফ খলিফার স্ত্রী। এ ঘটনায় মোশারেফ খলিফা ও তার আত্মীয় আসমা বেগমকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রোকেয়া বেগম জানান, জমি বিক্রি করে ৫০ হাজার টাকা দেওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে তার বাবা মো. আক্কাস তালুকদারকে চাপ দিয়ে আসছিল তার স্বামী। তার বাবা জমি বিক্রি করতে না চাওয়ায় তাকে বিভিন্ন সময়ে শারীরিক নির্যাতন করতে থাকে মোশারেফ খলিফাসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এরপর বৃহস্পতিবার বিকেলে রোকেয়া ছোট মেয়ে আফিফাকে নিয়ে বাবার বাড়ি বরগুনার তালতলী উপজেলার পচাকোড়ালিয়া ইউনিয়নের মনসাতলী গ্রামে যেতে চাইলে তার দেবর আলতাব খলিফা, ভাসুরের ছেলে আল আমিন খলিফা, ইমরান খলিফা ও কবির খলিফা তাকে মারধর করে পা শিকল দিয়ে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে তালাবদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে রোকেয়ার বাবা মো. আক্কাস তালুকদার ও তার ভাই ইয়াকুব তালুকদার ঘটনাস্থলে গেলে তাদেরও মারধর করা হয়।

এ বিষয়ে বরগুনা সদর থানার ওসি এসএম মাসুদুজ্জামান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে গৃহবধূ রোকেয়া বেগমকে উদ্ধার করেন তিনি। এ সময় অভিযুক্ত ইমরান খলিফার স্ত্রী আসমা বেগমকে এবং পরে অভিযান চালিয়ে রোকেয়ার স্বামী মোশারেফ খলিফাকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার রাতে রোকেয়া মামলা করলে শুক্রবার দুপুরে গ্রেপ্তার দু’জনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানান তিনি।

সূত্র: সমকাল

 

Similar Articles

Leave a Reply