You are here
নীড়পাতা > প্রতিবেদন > সিলেটে বিজ্ঞানী সিদ্দিকীকে ঘিরে প্রাণবন্ত আড্ডা

সিলেটে বিজ্ঞানী সিদ্দিকীকে ঘিরে প্রাণবন্ত আড্ডা

অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসকারী বাংলাদেশি বিজ্ঞানী মুহম্মদ জহিরুল আলম সিদ্দিকীকে ঘিরে অনুষ্ঠিত হলো প্রাণবন্ত আড্ডা। প্রকাশনা সংস্থা চৈতন্যের আয়োজনে আড্ডায় অংশ নেন সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ নানা ঘরাণার প্রতিনিধিরা।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় চৈতন্য কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আড্ডা প্রাঞ্জল করে রাখেন সিলেট কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ ও কবি ড. মোস্তাক আহমাদ দীন, এম সি কলেজের বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ইদ্রিস আলী, পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কবি কাসমির রেজা, কবি কৌস্তুভ শ্রী, চৈতন্য’র প্রকাশক রাজীব চৌধুরী এবং উইমেন ওয়ার্ডস এর সম্পাদক অদিতি দাস প্রমুখ।

আড্ডায় এই বিজ্ঞানী নিজের কর্মক্ষেত্রের নানা অভিজ্ঞতার কথা নিয়ে বলেন। পাশাপাশি বললেন তার শিক্ষার্থীদের নিয়েও। আড্ডায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান থেকে শুরু করে রাজনীতি, সাহিত্য, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের বিষয় উঠে আসে। বাদ যায়নি নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদাযের উপর হামলার বিষয়টিও। আলোচনায় তিনি তুলে ধরলেন জীবনের বিচিত্র অনেক অভিজ্ঞতার কথা। প্রসঙ্গত, বিজ্ঞানী মুহম্মদ জহিরুল আলম সিদ্দিকী বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছেন। পাশাপাশি সুবক্তা হিসেবেও তার সুনাম রয়েছে।

বিজ্ঞানী মুহম্মদ জহিরুল আলম সিদ্দিকীর গবেষণা

মুহম্মদ জহিরুল আলম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে একদল গবেষক ক্যানসারের প্রাথমিক পর্যায় শনাক্ত করার সহজ উপায় বের করেছেন। মানুষের শরীরে ক্যানসার ছড়িয়ে পড়ার আগেই তাঁদের উদ্ভাবিত প্রযুক্তিতে তা শনাক্ত করা যাবে। আর এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে উদ্ভাবিত যন্ত্র দিয়ে ঘরে বসেই যে কেউ ক্যানসার শনাক্ত করতে পারবেন। যন্ত্রটির দামও কম, বাংলাদেশে উৎপাদন খরচ মাত্র দেড় শ টাকা।

গবেষণাটির ফলাফল গত অক্টোবর মাসে আন্তর্জাতিক স্বীকৃত দ্য রয়েল সোসাইটি অব কেমিস্ট্রি জার্নাল ন্যানোস্কেল, দ্য আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটি জার্নাল অ্যানালাইটিক্যাল কেমিস্ট্রি এবং রয়েল সোসাইটি অব কেমিক্যাল কমিউনিকেশনসে ছাপা হয়েছে।

ক্যানসার শনাক্তকরণে গবেষণাটির উদ্দেশ্য ছিল, ক্যানসারের মতো রোগকে প্রাথমিক অবস্থায় স্বল্প খরচে শনাক্ত করা। নিম্ন আয়ের দেশের মানুষদের যেন লাখ লাখ টাকা খরচ করে ক্যানসারের চিকিৎসা করাতে গিয়ে একদম পথে বসে যেতে না হয়, সেই বিষয়টিও গবেষকদের বিবেচনায় ছিল। এ ছাড়া যন্ত্রটি ক্যানসার শনাক্ত করার পাশাপাশি চিকিৎসার বিভিন্ন পর্যায়ে শরীরে ক্যানসারের বৃদ্ধি অথবা হ্রাস পর্যবেক্ষণ করতে পারবে। ফলে রোগীর চিকিৎসা সঠিক পথে এগোচ্ছে কি না, সে ব্যাপারে চিকিৎসকেরা ধারণা পাবেন।

 

Similar Articles

Leave a Reply