You are here
নীড়পাতা > মুক্তমত > প্রতিক্রিয়া > নান্দিক নাট্যদলের পরিবেশনায় ‘হাসন রাজা’

নান্দিক নাট্যদলের পরিবেশনায় ‘হাসন রাজা’

Your ads will be inserted here by

Easy Plugin for AdSense.

Please go to the plugin admin page to
Paste your ad code OR
Suppress this ad slot.

রীমা দাস

হাসন রাজা-এই নামটি এখন দেশে বিদেশে আলোচিত এক নাম। গতকাল শনিবার নান্দিক নাট্যদল, সিলেট তাদের ২৩তম প্রযোজনা ‘হাসন রাজা’ পরিবেশন করল। নগরীর রিকাবিবাজারস্থ কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে মঞ্চস্থ হল নাটকটি। মিলনায়তন ভর্তি মানুষ মুগ্ধ হয়ে উপভোগ করল হাসন রাজার বর্ণিল জীবনের কাহিনী, যা দেখে আমার হাসন রাজা সম্পর্কে জানার আগ্রহ আরো বৃদ্ধি পেলো।

তরুণ নাট্যকার মোস্তাক আহমেদের যাদুকরী লেখনি দর্শকদের আকর্ষণ করতে পেরেছে। নবীন নাট্যকার জানেন নাটকের নাটকীয়তা, কখন কোথায় কি উপস্থাপন করবেন তা। তিনি আরো জানেন সংলাপ নাটকের প্রাণ। সেই সংলাপকে তিনি করেছেন জীবন্ত ও বাস্তব। তার সংলাপের মোহজালে আমরা একঘন্টা আবদ্ধ ছিলাম।

জমিদার হাসন রাজার জীবন যাপন স্বল্প পরিসরে ফুটিয়ে তুলেছেন সিলেটের নাট্য জগতে সুপরিচিত, আমাদের প্রিয় আমিরুল ইসলাম বাবু ভাই, যিনি এই নাটকের নির্দেশনা দিয়েছেন। বাবু ভাইয়ের নির্দেশনা সম্পর্কে বলার মত কোনো যোগ্যতা আমার হয়নি। তবুও এই কথাটি না বললেই নয়, আমরা একটু ভিন্ন আঙ্গিকে আজকের নাটকটি দেখলাম।

যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে আজকের নাটক আমাদের সামনে উপস্থাপন করেছেন, তারা অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। হাসন রাজার চরিত্রে অভিনয় করেছেন মাধব কর্মকার, তাকে অনেক ধন্যবাদ। বর্ণিল, মানবিক,দয়ালু, রাগী ও দুখি হাসন রাজার চরিত্র খুব সাবলীলভাবে তার অভিনয়ে ফুটে উঠেছে। হাসন রাজার জীবনে তাঁর ‘মা’ এর এক বিশাল ভূমিকা রয়েছে। মা চরিত্রে অভিনয় করেছেন শর্মিলা দেব পূরবী। হাসন রাজার ‘মা’ এর যে দৃঢ় চরিত্র ছিলো, তা এই স্বল্প পরিসরে খুবই সুন্দর ভাবে ফুটে উঠেছে শর্মিলার অভিনয়ে। অন্যান্য সহঅভিনেতাদের অভিনয়ও ছিলো প্রাণবন্ত।

মঞ্চ নাটক একটি দলগত উপস্থাপনা, যেখানে টিমওয়ার্ক খুব জরুরী। আমার কাছে এই টিমওয়ার্কে একটু  দুর্বলতা ধরা পড়েছে। তবে সব থেকে হৃদয়স্পর্শী জায়গা হলো হাসন রাজার মা’ এর মৃত্যু ও তাকে দেখতে না পারার যন্ত্রণা। এই জায়গাটা মাধব অতি চমৎকার ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন যা না বললেই নয়। এই অন্তিম সময়ে পরাগ রেণু দেব তমার কন্ঠে ‘উড়িয়া যাইবে শুয়া পাখি’ গানটিতে যে আবেগ পাওয়া গেলো তাতে দর্শকদের চোখ ভিজে গেলো। ক্ষনিক সময়ে আমরা এই পৃথিবীর বাইরে চলে গিয়েছিলাম।

ভোগ বিলাসে মত্ত হাসন রাজার অন্য রূপ দেখলাম আমরা, তাকে ভিন্ন ভাবে জানলাম। আবহমান বাংলার লোকসমাজে জনশ্রুত যে হাসন রাজা ,তাকে সাধক কবি রূপে চেনালেন মোস্তাক আহমেদ। তার এই নাটক বর্তমানে দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও সুনাম অর্জন করেছে। ইংল্যান্ডের ম্যাক থিয়েটার,আমেরিকার কুইন্স থিয়েটার হলে হাসন রাজার সফল মঞ্চায়ন হয়েছে। অপেক্ষায় আছে রাশিয়ার মস্কো থিয়েটার। ‘রূপ দেখিলাম রে নয়নে, আপনার রূপ দেখিলাম,’ এই উপলব্ধি যখন হাসন রাজার মধ্যে এলো, তখন তিনি ভিন্ন মানুষ হয়ে দেখা দিলেন আমাদের মাঝে। সবার জন্য শুভ কামনা।

Similar Articles

Leave a Reply