জান্নাতুন নাঈম প্রীতি
যে বান্ধবীটি বলতো- তোর ভাইয়া না বুয়েটে পড়ে! স্কুল জীবনে এই কথাটি গর্ব করে বলা সেই বান্ধবীর সাথে দেখা হল। তার বিয়ে হয়েছে। বিয়ের আহ্লাদে সে মাঝেমাঝেই সেসব ছবি দিয়ে আমার ফেসবুক ওয়াল ভরিয়ে রাখতো। বেশ কিছুদিন হল দিচ্ছেনা। স্কুল জীবনেই সেই ভাইয়াটির সাথে তার পরিচয় এবং প্রেম। ভাবলাম এতদিন পর যখন দেখা, আনন্দে তার মুখখানা ঝলমল করবে। কিন্তু না। কেমন যেন মনমরা চেহারা। কেমন আছি, কেমন চলছে জানার পর তার কাছে জানতে চাইলাম- সে কেমন আছে? সে বলল- তোর যদি সময় থাকে তাহলে চল, একটা কফিশপে বসি।

জানলাম ওর এতো ভালোবাসার মানুষটি বদলে গেছে বিয়ের পরদিন থেকেই। বিয়ের আগে প্রতিশ্রুতি দিলেও এখন বলেছে- তোমার আর পড়ালেখার দরকার নেই। ও যখন জানতে চেয়েছে- কেন? তখন বলেছে- আমাদের বাড়ির লোকজন বউয়ের টাকা খাওয়াটা পছন্দ করেনা। আমিই তো ইনকাম করছি। আবার তোমার পড়ালেখা করা লাগবে কেন? তুমি তো ইনকাম করবে না! এরপরও যখন কোনোভাবে বান্ধবীটি পড়ালেখা চালিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তখন বলেছে- বিশ্ববিদ্যালয়ে নিশ্চয়ই বান্ধবীটির একটি প্রেম হয়েছে, সেকারণেই লেখাপড়ার প্রতি এমন মায়া জন্মেছে!

বান্ধবীটি জানালো তার সব ভালোবাসা চলে গেছে। সে এই ফাঁদ থেকে বেরিয়ে আসতে চায়। কিন্তু বেরিয়ে আসবো বললেই তো বেরিয়ে আসা যায়না। বাড়ি থেকে তাকে জানানো হয়েছে- যখন ভালোবেসে বিয়েই করেছ, তখন সেখানেই থাকো এবং মানিয়ে নাও। আবার এদিকে ওর পড়াশুনা চালিয়ে যাওয়ার অপরাধে পাশের রুমে থাকে স্বামীটি। সেখানেই অফিসের এক মেয়ে কলিগের সাথে রাতের পর রাত জেগে ফোনে কথা বলে। সে এখন কি করবে? কোথায় যাবে?

আমি তাকে বলেছি- সে বেরিয়ে আসুক। বিয়েই জীবনের শেষ কথা নয়। কথা দিয়েছি আমি তার পাশে আছি। পাশে থাকবো। সে বলেছে- একটি বুটিক হাউস করবে, বিয়ের সব সোনার গহনা বিক্রি করে দিয়ে। সে নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায়। কিন্তু জীবনে ভুলেও বিয়ে আর প্রেম ভালোবাসার নাম সে মুখে নেবেনা।

আমি তাকে বললাম- এরপর যে তোর প্রেমে পড়বে সে তোর সাহস দেখে প্রেমে পড়ুক, রঙ বা রূপ দেখে নয়। রঙ বা রূপ দেখে যে ভালোলাগা কাজ করে সেটি মোহো। ভালোবাসা মানে- হাজার পুরুষ স্পর্শ করলেও এতোটুকু আবেদন না কমে যাওয়া। সেইই তোর প্রেমে পড়ুক যার ভালো লাগা তোর রঙ, রূপ আর চুলে নয়। তোর মেধা সাহস আর যোগ্যতায়! সেইই তোর প্রেমে পড়ুক যে বলবে- তুমি ফর্সা বলে নয়, তুমি সুন্দর বলে নয়, তুমি ‘তুমি’ বলেই আমি তোমায় ভালোবাসি!

Similar Articles

Leave a Reply