You are here
নীড়পাতা > সংবাদ > খেলাধুলা > ছেলেদের আগে বিশ্বকাপে মেয়েদের খেলার সম্ভাবনা : বাফুফের আলাদা পরিকল্পনা

ছেলেদের আগে বিশ্বকাপে মেয়েদের খেলার সম্ভাবনা : বাফুফের আলাদা পরিকল্পনা

রায়হান মাসুদ

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতকে ৩-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশের অনূর্ধ্ব ১৫ নারী দল। ভারতের সাথেই আগামী রোববার(২৪শে ডিসেম্বর) ফাইনাল খেলবে বাংলাদেশ।

এর আগেও এএফসি অনূর্ধ্ব ১৪ ফুটবলের আঞ্চলিক টুর্নামেন্টের ফাইনালে ওঠে ২০১৫ সালে।

ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার কলসিন্দুর গ্রামের নাম এখন বাংলাদেশের অনেকেই চেনে। একদল কিশোরী ফুটবলার সেখান থেকে উঠে এসেছে। বাংলাদেশে যে দেশব্যাপী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের টুর্নামেন্ট হয়, সেখানা টানা তিনবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ময়মনসিংহের কলসিন্দুর বিদ্যালয়।

নিয়মিত সাফল্য পাওয়া এই কিশোরিদের কাছে বিবিসি বাংলা জানতে চায় কিভাবে ফুটবলার হয়ে ওঠলেন তারা।

শারাবান তহুরা বলেন, ‘আমি ছোটবেলায় ফুটবল খেলতে চাইলে বাবা মা বারণ করতো লুকিয়ে খেলতাম, ফুটবল খেলতেই ভালোলাগতো শুধু। এখন আমাকে যখন টিভি বা পত্রিকায় দেখায় বাবা মা গর্ব করে।’

ছেলেদের চেয়ে নিয়মিতই সাফল্য পাচ্ছে মেয়েদের ফুটবল দলগুলো। বয়সভিত্তিক দলগুলো গড়ে তোলার মূল উদ্দেশ্য নারী বিশ্বকাপে অংশ নেয়া।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নারী উইংয়ের প্রধান মাহফুজা আক্তার কিরণ বলেন, ‘এই দলটি মূলত একটা পরিকল্পনা নিয়ে করা হয়েছে, দীর্ঘমেয়াদে মেয়েদের প্রশিক্ষন ক্যাম্পে রাখা হচ্ছে’

‘দলের লক্ষ্য হচ্ছে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন, সেজন্য দেশি ও বিদেশি কোচের সমন্বয়ে নিয়মিত ট্রেনিং হয়।’

‘খেলা না থাকলেও প্রতিনিয়ত ম্যাচ আয়োজন করা হয়।’

‘শুধু খেলা নয়, খাদ্যাভ্যাসের দিকেও আমরা খেয়াল রাখি,’ বলেছেন মাহফুজা আক্তার কিরণ।

২০০৯ সাল থেকেই এই দলের সাথে আছেন কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন।

তিনি বলেন, ‘যতক্ষণ দলের সাথে আছেন ততক্ষণ ওরা একতাবদ্ধ, একসাথে জীবনযাপনের সুফল পাচ্ছে দলটি।’

‘বাংলাদেশ নারী দল নিয়ে বিশ্বকাপ খেলার সম্ভাবনা বেশি, তাই বাফুফের পৃথক পরিকল্পনা এই দল নিয়ে।’

‘ইংল্যান্ডের পল স্মলি পরিকল্পনা সাজান, তিনিও এই দল নিয়ে আশাবাদী।’

সূত্র: বিবিসি বাংলা

Similar Articles

Leave a Reply