You are here
নীড়পাতা > শিল্প ও সাহিত্য > কে পাচ্ছেন এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (পর্ব-৫)

কে পাচ্ছেন এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (পর্ব-৫)

reza-gotok-women-wordsআগামী ১২ থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে ঘোষণা করা এবারের সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর নাম। গোটা বিশ্বের সাহিত্যপ্রেমীদের নজর এখন সুইডিশ নোবেল একাডেমির দিকে। ঠিক কবে এবারের সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীর নাম তারা ঘোষণা করবে, এটা নিয়ে একটা লুকোচুরি হচ্ছে। অন্য পাঁচটির সিডিউল জানালেও এটির এখনও সিডিউল ঘোষণা করেনি সুইডিশ একাডেমি। আজ আলোচনা করব অস্ট্রেলিয়া ও ওশেনিয়া, এশিয়া ও আমেরিকা মহাদেশের সম্ভাব্য নোবেল বিজয়ীদের নাম।

অস্ট্রেলিয়া ও ওশেনিয়া মহাদেশ:

gerald-murnane-women-wordsঅস্ট্রেলিয়ার লেখক জেরাল্ড মার্নেনকে তুলনা করা হয় ডার্ক হর্সের সঙ্গে। এবার সম্ভাব্য নোবেল বিজয়ীদের তালিকায় নাম রয়েছে জেরাল্ডের। তিনি অস্ট্রেলিয়ার লিজেন্ড রাইটার এবং একজন স্কলার। জেরাল্ডের প্রথম দুটি উপন্যাস ‘তামারিস্ক রো’ ও ‘এ লাইফ টাইম অন ক্লাউডস’ তাঁর অাত্মজীবনীমূলক উপন্যাস। প্রথমটি শিশুকালের উপর আর দ্বিতীয়টি কৈশোরকালের উপর। জেরাল্ডের বিখ্যাত ও বহুল আলোচিত উপন্যাসগুলো হলো- ‘প্লেইনস’, ‘ল্যান্ডস্কেপ উইথ ল্যান্ডস্কেপ’, ‘আইল্যান্ড’, ‘ভেলভেট ওয়াটারস’, ‘এমারেল্ড ব্লু’, ‘ইনভিজিবল ইয়েট এন্ডুরিং লিলাকস’, ‘বার্লে পাস’, ‘এ হিস্ট্রি অব বুকস’, ‘এ মিলিয়ন উইন্ডোস’, ‘সামথিং ফর দ্য পেইন: এ মেমোর অফ দ্য টার্ফ প্রভৃতি। এ বছর জেরাল্ড সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হলে অবাক হওয়ার কিছু নাই।

এশিয়া মহাদেশ:

haruki-murakami-women-wordsজাপানি ঔপন্যাসিক হারুকি মুরাকামিকে তাঁর সাহিত্যকর্মের জন্য পৃথিবীর জীবিত সর্বশ্রেষ্ঠ সাহিত্যিকদের মধ্যে অন্যতম বলে বিবেচনা করা হয়। এ বছর সম্ভাব্য নোবেল বিজয়ীর তালিকায় বেশ জোরেসোরেই তাঁর নাম উচ্চারিত হচ্ছে। মুরাকামি এবারও রয়েছেন শর্ট লিস্টে। ১৯৪৯ সালের ১২ জানুয়ারি জাপানের কিয়াটো শহরে হারুকি মুরাকামি জন্মগ্রহন করেন। একজন জনপ্রিয় জাপানি লেখক হিসেবে তাঁর রচিত কথাসাহিত্য ইতোমধ্যে তাঁকে জাপান ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সমালোচকদের প্রশংসা ও অনেক পুরস্কার এনে দিয়েছে। এ সব পুরষ্কারের মধ্যে ওয়ার্ল্ড ফ্যান্টাসি অ্যাওয়ার্ড (২০০৬), ফ্রাংক ও’কনার আন্তর্জাতিক ছোটগল্প পুরস্কার, ফ্রান্‌ৎস কাফকা পুরষ্কার (২০০৬) এবং জেরুজালেম পুরষ্কার (২০০৯) অন্যতম। তাঁর মৌলিক রচনার মধ্যে ‘এ ওয়াইল্ড শিপ চেজ’ (১৯৮২), ‘নরওয়েজিয়ান উড’ (১৯৮৭), ‘দি উইন্ড-আপ বার্ড ক্রনিকল’ (১৯৯৪-১৯৯৫), ‘কাফকা অন্য দি শোর’ (২০০২) এবং ‘ওয়ানকিউএইটফোর’ (২০০৯-২০১০) অন্যতম। এছাড়া তিনি অনুবাদক হিসেবে অনেক ইংরেজি সাহিত্য জাপানি ভাষায় অনুবাদ করেছেন। এ বছর মুরাকামি সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হলে একদম অবাক হওয়ার কিছু নেই।

kim-hyesoon-women-wordsদক্ষিণ কোরিয়ার ফেমিনিস্ট কবি কিম হাইসুন এবার সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীদের শর্ট লিস্টে রয়েছেন। সমাজের বাস্তব চিত্রের এক অতি আবশ্যক পোয়েটিক চিত্রের মধ্যে হাইসুন তাঁর কবিতায় রোগ, জরা, দুঃখ আর কষ্টগুলোকে এমনভাবে ফুটিয়ে তোলেন, যা কোরিয়ান সাহিত্যে একটি নান্দনিক সৌন্দর্য হয়ে আলো ছড়ায়। হাইসুনের বহুল পঠিত কাব্যগ্রন্থগুলো হলো- ‘পুওর লাভ মেশিন’, ‘আই অ্যাম ওকে, আই অ্যাম পিগ’, ‘সরোটুথপেস্ট মিররক্রিম’, ‘মাম্মি মাস্ট বি এ ফাউন্টেইন অব ফেদারস’, ‘অ্যানেক্সিটি অব ওয়ার্ডস’, ‘অল দ্য গার্বজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড, ইউনাইট’, ‘হোয়েন দ্য প্লাগ গেটস আনপ্লাগ’ ইত্যাদি। তাঁর বহুল পঠিত প্রবন্ধের বইটির নাম ‘প্রিন্সেস অ্যাবান্ডান্ড’। এ বছর সাহিত্যে নোবেলের জন্য কিম হাইসুনের নামও বেশ জোড়ালোভাবে উচ্চারিত হচ্ছে।

ambai-women-wordsভারতের তামিল ভাষার লেখক সিএস লক্ষী এবার সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীদের শর্ট লিস্টে রয়েছেন। ভারতের এই ফেমিনিস্ট রাইটারের পেন নেম হলো আম্বাই। তামিল ভাষার লেখক হলেও রাজনৈতিক সচেতন এই লেখিকা ভারতের নারী আন্দোলনের একজন সক্রিয় নেত্রী ও একজন স্কলার গবেষক। আম্বাই’র বহুল আলোচিত বইগুলো হলো- ‘দ্য ফেস বিটউইন দ্য মাস্ক: উইমেন ইন তামিল লিটারেচার’, ‘এ পার্পেল সি’, ‘বডি বলোজ: উইমেন, ভায়োলেন্স অ্যান্ড সার্ভাইভাল’, ‘সেভেন সিস অ্যান্ড সেভেন মাউন্টেইনস’, ‘দ্য আনহারিড সিটি’, ‘ইন এ ফরেস্ট, এ ডিয়ার’ প্রভৃতি। প্রয়াত মহেশ্বেতা দেবী’র পর আম্বাই ভারতের সবচেয়ে আলোচিত লেখক। এ বছর আম্বাই সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হলে তিনি হবেন রবীন্দ্রনাথের পর দ্বিতীয় কোনো লেখক যিনি ভারতের হয়ে সাহিত্যে নোবেল পাবেন। আম্বাই’র স্বামী বিষ্ণু মাথুর একজন চলচ্চিত্র নির্মাতা।

teru-miyamoto-women-wordsজাপানের লেখক তেরু মিয়ামোতো’র নামও এবার জোরে সোরে উচ্চারিত হচ্ছে। তাঁর উপন্যাসগুলো এশিয়ার দেশগুলোতে বহুল পঠিত হলেও ইংরেজি ভাষার দেশগুলোতে তেমন আলোচিত নয়। তাঁর লেখায় ব্যবহৃত হিউমার ও প‌্যাথোস অত্যন্ত শক্তিশালী। তাঁল বিখ্যাত উপন্যাসগুলো হলো- ‘দোরো নো কাওয়া’, ‘হোটারুগাওয়া’, ‘কিনশু’ ও ‘মাবোরশি নো হিকারি’। জাপানি চলচ্চিত্র নির্মাতা হিরোকাজু কোরিদা তেরু’র ‘কিনশু’ ও ‘মাবোরশি নো হিকারি’ উপন্যাস দিয়ে ”মাবোরশি’ নামে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। এবার তেরু মিয়ামোতো সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হলে অবাক হওয়ার কিছু নেই।

hoang-thi-y-nhi-women-wordsভিয়েতনামের কবি হোয়াং থি ওয়াই নি-এর নাম এবার সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীদের সম্ভাব্য তালিকায় আলোচিত হচ্ছে। তাঁর বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থগুলো হলো- ‘এ উইমেন নিটিং’, ‘ব্ল্যাক ডগ ব্ল্যাক নাইট’। তাঁর কবিতায় আধুনিক ফর্ম ও ইমোশোন খুব শক্তিশালী। ভিয়েতনাম যুদ্ধ পরবর্তী সবচেয়ে শক্তিশালী কবি হিসেবে তাঁর নাম উচ্চারিত হয়। গত বছর সুইডিশ সরকার তাঁকে চিকাদা পুরস্কার প্রদানের পর থেকেই সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের তালিকায় তিনি খুব আলোচিত একটি নাম।

deng-xiaohua-women-wordsচীনের লেখিকা দেং সিয়াওহুয়া এবার বেশ আলোচিত একটি নাম। তাঁর আসল নাম ক্যান স্যুই। চীনের কমিউনিস্ট সরকারের বিপক্ষে জাতীয়তাবাদী লেখালেখির জন্য বিশ্বে তিনি খুব আলোচিত একজন লেখিকা। তাঁর বহুল আলোচিত উপন্যাসগুলো হলো- ‘দ্য ডাবল লাইফ’ ও ‘দ্য লাস্ট লাভার’। এ বছর দেং সাহিত্যে নোবেল পেতে পারেন।

ko-un-women-wordsদক্ষিণ কোরিয়ার কবি কো উন, ভারতের লেখিকা অনিতা দেশাই যাকে ভার্জিনিয়া উলফের সঙ্গে তুলনা করা হয়, জাপানের কবি সুনতারো তানিকাওয়া, দক্ষিণ কোরিয়ার ফেমিনিস্ট পোয়েট মুন চাং হি, ভিয়েতনামের লেখক দুয়ং থু হুয়ং, দক্ষিণ কোরিয়ার লেখক হং সোক ইয়ংএর নামও এবার এশিয়া অঞ্চল থেকে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের জন্য বেশ আলোচিত হচ্ছে।

আমেরিকা মহাদেশ:

ricardo-piglia-women-wordআর্জেন্টিনার লেখক রিকার্দো পিগলিয়া’র নাম এবার সম্ভাব্য সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হিসেবে বেশ আলোচিত। তাঁর বিখ্যাত দুটি ডিটেকটিভ উপন্যাস ‘দ্য ব্ল্যাক বুক’ ও ‘মাই নেম ইজ রেড’। তুরস্কের ওরহান পামুকের সঙ্গে আর্জেন্টাইন এই লেখক রিকার্দো পিগলিয়াকে তুলনা করা হয়। তাঁর বহুল আলোচিত উপন্যাসগুলো হলো- ‘আর্টিফিসিয়াল রেসপাইরেশান’, ‘দ্য অ্যাবসেন্ট সিটি’, ‘বার্ন্ট মানি’, ‘নকটার্নাল টার্গেট’। এ বছর সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হতে পারেন আর্জেন্টিনার লেখক রিকার্দো পিগলিয়া।

rodrigo-rey-rosa-women-wordগুয়েতেমালার লেখক রডরিগো রে রোসা’র নামও এবার বেশ জোরে সোরে উচ্চারিত হচ্ছে। তাঁকে তুলনা করা গ্যাবরিয়েল গার্সিয়া মার্কুইজের সঙ্গে। তাঁর ম্যাজিক রিয়ালিজম এবং মিস্টিক রিলমস ও লিজেন্ড মিথগুলো তাঁর লেখাকে পাঠকের হৃদয় জয় করতে প্রলুব্ধ করে। তাঁর বহুল আলোচিত উপন্যাসগুলো হলো- ‘দ্য পাথ ডাবলস ব্যাক’, ‘ডাস্ট অন হার টং’, ‘দ্য বেগার’স নাইফ’, ‘দ্য আফ্রিকান স্যোর’, ‘সেভেরিনা। এ বছর তাঁর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পাবার প্রচণ্ড সম্ভাবনা রয়েছে।

franketienne-galerie-womenহাইতি’র কবি ও নাট্যকার ফ্রাংকএতিন্নে এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের সম্ভাব্য শর্ট লিস্টে রয়েছেন। তিনি হাইতি’র সবচেয়ে লিডিং ইনটেলেকচুয়ালদের একজন। তাঁর ‘ফাদার অব লেটারস’ নাটকটি সারা বিশ্বে বহুল পঠিত একটি উপন্যাস। এছাড়া ‘আলট্রা ভোকাল’, ‘মুর এ ক্রেভার’, ‘লেস অ্যাফরেস ডি’উন ডেফি’ উপন্যাসগুলোও বিখ্যাত। এ বছর ফ্রাংকএতিন্নে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেতে পারেন।

এছাড়া ল্যাটিন আমেরিকা থেকে এবার আলোচিত অন্যান্য সম্ভাব্য সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হিসেবে ধরা হচ্ছে উরুগুয়ের কবি সিয়ারসে মাইয়া ও আর্জেন্টিনার লেখক সিজার আইরাকে।

শেষকথা:

এ বছর সাহিত্যে নোবেল বিজয়ীর শর্ট লিস্টের তালিকাটিও বেশ লম্বা। তালিকায় এখনো সম্ভাব্য বিজয়ী হিসেবে নাম রয়েছে ৫৬ জনের। যে কারণে সুইডিশ নোবেল কমিটি এখন পর্যন্ত সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের তারিখ ঘোষণা করতে পারেনি। এই ৫৬ জন থেকে তালিকা আরো ছোট করা বেশ কঠিন একটি কাজ। তালিকার ৫৬ জনের মধ্যে ৩৮ জন পুরুষ এবং ১৮ জন নারী লেখক। এমন কী এই তালিকার বাইরে থেকে মিলান কুন্ডেরা বা ইসমাইল কাদারে যদি এ বছর সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী হন, অবাক হওয়ার কিছু নাই। সুইডিশ নোবেল কমিটির নতুন স্ট্রাটেজি হলো নতুন লেখকদের উৎসাহিত করা। আর সুইডিশ নোবেল একাডেমির স্থায়ী সেক্রেটারি একজন নারী হওয়ায় এবার একজন নারী পেতে পারেন সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার।

বিগত কয়েক বছরে আফ্রিকান সাহিত্যকে নেগলেক্ট করায় এবং বেশ কয়েক বছর তুলনামূলক কম পরিচিত লেখকরা সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী হওয়ায়, এবার সবচেয়ে বেশি বিতর্ক ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারকে ঘিরে। সেজন্য সুইডিশ নোবেল কমিটি একধরনের লুকোচুরি খেলছেন। কিন্তু সেই লুকোচুরি আর কত? এই সপ্তাহে তো নামটি ঘোষণা করতেই হবে। তাই আমার বাজি এবার আফ্রিকান সাহিত্যের পক্ষে। কেনিয়ার নগুগি ওয়া থিয়োঙ্গ’ও, সোমালিয়ার নুরুদ্দিন ফারাহ, নাইজেরিয়ার বেন ওর্কি, অ্যাংগোলার পেপেটোলা, দক্ষিণ আফ্রিকার উইলমা স্টকেনস্ট্রম, মোজাম্বিকের মিয়া কৌতো, কিংম্বা সিরিয়ার আদুনিস, মিশরের বাহা তাহের, মরক্কোর আবদেললতিফ লাবি, লিবিয়ার ইব্রাহিম আল কোনি, লেবাননের ইলিয়াস খৌরি, বা ইসরাইলের আমোস ওজ বা জাপানের হারুকি মুরাকামি যে কেউ এ বছর সাহিত্যে নোবেল পেতে পারেন। তবে সুইডিশ নোবেল কমিটির চূড়ান্ত ঘোষণাটি আশার আগ পর্যন্ত আমরা কেবল চায়ের টেবিলে শোরগোল পাকাতে পারি।

-0-

 

লেখকের এ সংক্রান্ত অন্য লেখা পড়ুন-
কে পাচ্ছেন এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (পর্ব-৪)
কে পাচ্ছেন এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (পর্ব-৩)
কে পাচ্ছেন এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (পর্ব-২)
কে পাচ্ছেন এবার সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (পর্ব-১)

 

 

Similar Articles

Leave a Reply