You are here
নীড়পাতা > প্রতিবেদন > ঈদের দিন তরুণীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ

ঈদের দিন তরুণীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ

পটুয়াখালীর বাউফলে ঈদের দিন শনিবার সকালে এক তরুণীকে (২২) সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করা হয়েছে। সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার আদাবড়িয়া ইউনিয়নের মিলঘড় এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে।

অপরদিকে, কনকদিয়া ইউনিয়নে ১০ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে শুক্রবার রাতে ধর্ষণ করা হয়েছে।

দুই জনকেইউদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মিলঘর এলাকার তরুণী জানান, তার মা পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ৬টার দিকে তিনি হাসপাতাল থেকে নিজ বাড়ি দশমিনার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে লোহালিয়া খেয়া পার হয়ে ভাড়ায়চালিত একটি মোটরসাইকেলে ওঠেন। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মোটরসাইকেলটি মিলঘড় এলাকার বটতলার সানু মৃধার বাড়ির কাছে পৌঁছালে ৪ দুর্বৃত্ত চলন্ত মোটরসাইকেলের গতি রোধ করে চালককে প্রাণনাশের হুমকি দেন এবং মেয়েটির মুখ চেপে কাছেই একটি পরিত্যক্ত ভিটায় নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে তার চিৎকারে স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি এসে তাকে উদ্ধার করে। এ সময় স্থানীয়রা কবির শরীফ নামের এক যুবককে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে এবং কবির হোসেনকে (২৭) গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে।

অভিযুক্ত আরো তিন যুবক হলেন- আবদুর রশিদ সরদারের ছেলে মিজান সরদার (২৬), হানিফ মীরের ছেলে সিদ্দিক (২২) এবং আতাহার গাজির ছেলে জাফর গাজি (২৮)। এদের দুইজনের বাড়ি একই ইউনিয়নের আতশখালী ও অপর দুইজনের বাড়ি মহাশ্রাদ্ধি গ্রামে।

অপরদিকে শুক্রবার রাতে কনকদিয়া ইউনিয়নের কনকদিয়া গ্রামের বিলাস পালের ছেলে বলরাম পাল  ১০ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। পুলিশ ওই ছাত্রীকেও উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আযম খান ফারুকী বলেন, উভয় ঘটনার জন্য মামলার প্রস্তুতি চলছে।

সূত্র: পরিবর্তন

 

Similar Articles

Leave a Reply